জিকা ভাইরাসের কবলে এবারের অলিম্পিক ! ! !

903
SHARE

ব্রাজিলে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া রিও অলিম্পিকে আতংকের নাম হয়ে দাঁড়িয়েছে জিকা ভাইরাস। ইতিমধ্যে জিকা ভাইরাস এর প্রকোপ আঁচ করতে পেরে অনেক দেশের অ্যাথলেট রিওর এই আয়োজন থেকে নিজেদের নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছে। আয়োজকদের নিশ্চয়তা সত্ত্বেও কেউ তেমন একটা স্বস্তি নিতে পারছেন না এর কারন খোদ অলিম্পিক অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া রিও শহরেই প্রায় ২৬০০০জন এই রোগে আক্রান্ত যা ব্রাজিলের অন্যান্য শহরের তুলনায় বেশি। এই মুহূর্তে জিকার পাশাপাশি ডেঙ্গুর ও প্রকোপ মারাত্মক আকার ধারণ করেছে পুরো ব্রাজিল জুড়ে আর সভাবতই ধারনা করা যাচ্ছে মশা বাহিত রোগ নির্মূলে ব্রাজিল সরকার এখনো সফল হতে পারেনি। চলমান এই পরিস্থিতিতে সারা বিশ্বের ক্রীড়া কর্তৃপক্ষগুলোর মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া রয়েছে তারা তাদের অংশগ্রহণকারী অ্যাথলেটদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়ে ভীষণভাবে চিন্তিত এবং এর ভয়াবহতা নিয়েও শঙ্কিত। যদিও এমন পরিস্থিতিতে আয়োজকদের পক্ষ থেকে অলিম্পিক পেছানোর কোন আভাস পাওয়া যাচ্ছে না।

কি এই ভাইরাস যা অলিম্পিকের মত একটি বিশাল আয়োজনের যাত্রায় ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে?

আলোচিত এই জিকা একটি মশা বাহিত ফ্লাভিভাইরাস রোগ যা অনেকটা ডেঙ্গুর মতই। এটি প্রথম আবিষ্কৃত হয় ১৯৪৭সালে উগান্ডার লেক ভিক্টোরিয়ার পশ্চিম তীরের জিকা ফরেস্ট নামক ছোট একটি বনে তখন বানরের দেহে এই ভাইরাসের লক্ষণ মেলে, পরবর্তীতে ১৯৫২ সালে উগান্ডা ও তানজানিয়াতে মানবদেহে প্রথমবারের মত এই ভাইরাস শনাক্ত করা হয়। এরপর তা ছড়িয়ে পরে পূর্ব এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশগুলোতে।

অনেক গবেষকদের ধারনা উপনিবেশ স্থাপনকারিরা আফ্রিকা থেকে এই ভাইরাস তাদের শরীরের মাধ্যমে আমেরিকাতে নিয়ে আসে। জিকা ফ্লাভিভাইরিডি পরিবারের অন্যান্য ভাইরাসের মতই আবরণযুক্ত ও আইকসাহেড্রাল আকৃতির RNA ভাইরাস। জিকার প্রাদুর্ভাব প্রকোট আকারে মহামারীর মত ছড়ায় ২০০৭সালে ইয়াপ দ্বীপে। বর্তমানে প্রায় প্রতিটি দেশেই জিকার প্রাদুর্ভাব বিরাজমান। বিশেষজ্ঞদের মতে এই ভাইরাস সেক্স এর মাধ্যমেও পরিবাহিত হতে পারে আর তা যদি কোনভাবে গর্ববতী মহিলার দেহে ছড়ায় তবে তার সন্তান জন্মদানে তিব্র ত্রুটি দেখা দিতে পারে। শুধু ব্রাজিলেই বিগত মাস গুলুতে জন্ম নেয়া প্রায় ৫০০০-এর বেশি শিশুর মস্তিষ্ক স্বাভাবিকের চেয়ে ছোট আকারের হয়েছে। গর্ভবতি মহিলাদের উপর চলানো একটি গবেষণায় এই ধারণাটি স্পষ্ট হয়ে যায় যে  জিকা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার সাথে ছোট মাথা নিয়ে জন্মধারনের সম্পর্ক। হঠাৎ মহামারী আকার ধারণ করায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  জিকা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবকে ইতিমধ্যে বৈশ্বিক স্বাস্থ্য সংকট ঘোষণা করেছে। আর এরই মধ্যে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া রিও অলিম্পিক’২০১৬ জিকার কবলে পড়ে মারাত্মক ভাবে জর্জরিত। আগে কখনোই এ রোগ ব্রাজিলে এবারের মত হুমকি হয়ে আসেনি। যদি বর্তমান পরিস্থিতি ব্রাজিলিয়ান কর্তৃপক্ষ সামাল দিতে না পারে তবে রিও অলিম্পিকের এই আয়োজন ম্লান হয়ে যেতে পারে অনেকটাই।

আপনার মন্তব্য