দেশী দর্শকদের বোকা ভাববেন না……

13496
SHARE

অবাধে বিদেশী তথা ভারতীয় চলচ্চিত্র মুক্তি দেয়ার প্রতিবাদে গত কদিন ধরেই দেশে নানা ধরনের আন্দোলন হচ্ছে। ফেসবুকে নানা ধরনের প্রতিবাদও আসছে। দেশে সিনেমা নিয়ে সবাই অনেকেই শংকিত হয়ে আছেন এবং শংকিত হওয়াটাই স্বাভাবিক। দেশি সিনেমাকে বাচানোর জন্য আসলে অনেক কিচুই করা উচিত। সত্যি কথা বলতে গেলে এভাবে বিদেশী সিনেমা বাজারে ছাড়লে দেশী সিনেমার আকাল নেমে আসবেই। এটা ঠেকানো কোনভাবেই সম্ভব না। যাই হোক এসব তো পুরোনো কথা। এবার একটু বাস্তবতার ভেতরে যাই।

এককালে বাংলা সিনেমা অনেক জনপ্রিয় ছিল মানুষ হলে গিয়ে টাকা দিয়ে টিকেট কেটে সিনেমা দেখত। এরকম একসময় বিটিভির নাটক খুব জনপ্রিয় ছিল। নাটকের ক্লাইম্যাক্সের কারনে মানুষ রাস্তায় নেমে প্রতিবাদও করত! এমন ছিল একটা সময়ে আমাদের দর্শক। তাই না! এরপর অনেক টিভি চ্যানেল হলো কিন্তু আগের সেই দর্শকপ্রিয়তার ব্যাপারটা কোথায় হারিয়ে গেলে। সেই ফাকে আমাদের দেশীয় সিনেমা কিভাবে জানি এক নর্দমায় পতিত হলো। খারাপের দিক থেকে সব ধরনের লেভেল পার করে ফেলল। বাংলা সিনেমা দেখাকে একটা গালিতে পরিণত করল। এগুলো তো সবই অতীত যার রেশটা এখন আমরা নিচ্ছি। আমাদের টিভি ইন্ডাস্ট্রীর কথা জানিনা এখন কেমন। অনেক তো টিভি চ্যানেল। আচ্ছা, শেষ কোন নাটকটি আপনার মনে গভীর দাগ কেটেছে? যেটি দেখার পর মনে হয়েছে সেই নাটকটি আপনার সারাজীবন মরে থাকবে? এরকম তো কাউকে তেমন একটা বলতে শুনিনা। বিশাল একটা জনগীষ্ঠী একই কথা বললেই তো কানে আসত তাই না? সিনেমার ব্যাপারেও এক। শেষ কোন সিনেমা মনে দাগ কেটেছে? অথবা সিনেমাটা দেখার পর মনে হয়েছে একটা সত্যিকারের সিনেমা দেখেছেন? ঠিক যেমনটা ফিল হয় কোন হলিউড বা বলিউড সিনেমা দেখার পর?

সেদিন কে জানি বলছিল, “ভাই এদেশের দর্শকদের কোন স্টেশন নাই, কোন ক্লাস নাই”। তাকে আমি একটা কথা উল্টো জিজ্ঞেস করলাম, “ভাই, দর্শককদের শেষ কবে “ক্লাসওয়ালা” প্রোডাকশন দিয়েছেন? তিনি চুপ মেরে গেলেন। কারন কথা বললেই প্যাচে পড়ে যেতেন। আমাদের দেশের প্রত্যন্ত অঞ্ছলে ঢু মারলেও একটা ডিভিডি প্লেয়ার পাওয়া যাবে যেখানে হলিউডের বিখ্যাত ছবি যেমন মিশন ইম্পসিবল বা টাইটানিক চলছে। তাই না? আচ্ছা হলিউড বাদ দেন, বলিউডের গুলো তো পাওয়া যাবে তাই না? মানুষ খুযে খুজে, টাকা দিয়ে ডিভিডি কিনে, বন্ধুরের রিকোয়েস্ট করে বা নিজের ইন্টারনেট কোটা শেষ করে ডাউনলোড করে এসব সিনেমা মানুষ প্রতিদিন দেখতে অভ্যস্ত। এর মানে কি? এর মানে হলো, বাংলাদেশের দর্শকদের রুচি অনেক হাই লেভেলের। তারা কোয়ালিটি চিনে। জানে কোনটা ভাল সিনেমা আর কোনটা ফাউল। হলিউড আর বলিউড দেখতে অভ্যস্ত। শত কোটি টাকা বাজেটের সিনেমা দেখতে অভ্যস্ত, ভাল অভিনয় দেখতে অভ্যস্ত, চোখ জুড়ানো থ্রিডি এনিমেশন দেখতে অভ্যস্ত। এধরনের দর্শকদের তো সহজে মনজয় করা যাবে না। অন্তত মিনিমাম কোয়ালিটি হলেও বলিউড মার্কা সিনেমা হতে হবে।

এখন এসব দেখে যারা অভ্যস্ত, তাঁদের জন্য বস্তা পচা সিনেমা বানিয়ে কি অসাধ্য সাধন করে ফেলবে? জোর করে দেখাবেন সেই সিনেমা? এমনকি নকল করা যেসব সিনেমা রিলিজ হচ্ছে, দর্শকরা তো আগেই সেগুলোর অরিজিনাল কপি দেখে ফেলেছে। হ্যা, নকলটাও দেখবে যদি আসলটার চাইতে ভাল হয়। যদি আসলটার চাইতে খারাপ হয় তাহলে কেন দেখবে। এই মুহুর্তে দেশে যেসব সিনেমা বানানো হচ্ছে সেগুলো কি বলিউডের ছাপে বানানো হচ্ছে না? এখানে নতুণত্ব কি? বিদেশী লোকেশনে গান, স্টাইলিশ নায়ক নায়িকা? আরে এর চাইতে ১০০০ গুন ভাল জিনিষ তো মানুষের পকেটে মোবাইলে ভরে রাখে !

দেশি সিনেমা আমরা এখন দেখতে যাই অনেকটা দয়া করে, করুনা করে। আহারে, অমুক ডিরেক্টর একটা সিনেমা বানাইসে, চল দেখে আসি, অনেক কস্ট করসে” টাইপের ফিলিংস থেকে। টাইটানিক বা ব্যাটম্যান দেখতে যাওয়ার মত উত্তেজনা নিয়ে না। এটা তো মানেন নাকি? বাস্তবতা অনেক কঠিন। এখন আমরা যা বানাচ্ছি, অন্তত সিনেমার ক্ষেত্রে, এসব আমাদের দেশের মানুষ অনেক আগেই দেখে শেষ করে ফেলেছে। নতুন করে তারা এসব আবার কেন দেখতে চাইবে? আর এগুলো দেখা হয়ে গেছে অনেক বছর আগেই। আজকাল ইউটিউব ভিডিও মানুষ অনেক আগ্রহ নিয়ে দেখে কিন্তু বাংলা সিনেমা না। কেন? কারন এক্সপেক্টেশন নেই বললেই চলে। এই মুহুর্তে যদি আমি একটা সিনেমা বানাই, আমি, আমার কিছু ফ্রেণ্ড এবং ফ্যামিলি ছাড়া কজনে দেখবে?

বাংলাদেশের মানুষ কোয়ালিটির জন্য অপেক্ষা করছে। বস্তা পচা সিনেমার জন্য না। কোয়ালিটি যেখানে মানুষ সেখানে যাবে। এতদিন মানুষ সিনেমা ছাড়া কিভাবে চলেছে? সিনেমা কি দেখেনি? হ্যা,বাংলা সিনেমা ছাড়া সব দেশী সিনেমা দেখেছে। যতদিন বাংলা সিনেমার স্ট্যান্ডার্ড পরিবর্তিত হবে না ততদিন দেখবে না। গল্প, চিত্রগ্রহন, এডিটিং, এনিমেশন , অভিনয় – একাধারে সবদিক থেকেই এই কোয়ালিটির বিশাল আপগ্রেড করতে হবে। তানা হলে বাংলাদেশের দর্শকদের মনজয় করা যাবে না। বাংলা সিনেমার নিজস্ব একটা ধারা থাকতে হবে। নিজস্ব একটা ট্রেন্ড, একটা প্রিন্ট থাকতে হবে। যেটা দেখে মাত্র যে কেউ বলে দিতে পারবে এটা বাংলা সিনেমা। হলিউডের সিনেমার একটা ছোট্ট প্রিন্ট দেখেই বলে দিতে পারেন এটা কোথাকার। হিন্দি সিনেমার ক্ষেত্রেও একই ব্যাপার। এবার চোখ বন্ধ করে চিন্তা করে দেখুন বাংলা সিনেমার কথা বললে সবার আগে কি ধরনের প্রিন্ট আর কি জিনিষ মনে আসে। কমেন্টে বলুন কি পেলেন?

বাস্তবটা হলো আমরা এখনও জানিনা কিভাবে ভাল সিনেমা বানাতে হবে। এমন কোন সিনেমা যেটা মানুষের মন জয় করতে পারবে। দর্শকরা খুশী মনে গ্রহন করবে। হাততালি বাহবা পড়বে। গল্পের সাথে দর্শকের ইমোশনের পরির্তন ঘটবে, গল্পের সাথে তারা কখনও হাসবে, কখনও কাদবে। যতদিন না পর্যন্ত আমরা হিন্দি সিনেমার মত বা তার চাইতে ভাল সিনেমা বানাতে পারব না ততদিন পর্যন্ত এইসব হিন্দি বা বিদেশি সিনেমা বাংলাদেশের বাজার দখল করে রাখবে। মানুষ কোয়ালিটিটাই নিবে। এটাই স্বাভাবিক। আর যদি অবাধে বিদেশী চলচ্চিত্র মুক্তি দেয়া হয়, তাহলে তো আর কথাই নেই। দর্শক যেটা আগে ঘরে বসে দেখত সেটা হলে গিয়ে দেখবে। তাও দেখবে। মাঝখানে পড়ে হল থেকে বাংলাদেশী সিনেমা গায়েব হয়ে যাবে কারন এগুলো চলবে না। এটাইতো? এই ভয়েই তো আন্দোলন? তাই না? কথা আসলেই ঠিক। বাংলা সিনেমা প্রতিযোগিতায় টিকতে পারবে না। কেন পারবে না? কারন বাংলা সিনেমা বিদেশী সিনেমারগুলোর চাইতে ভাল না, তাই দর্শকরা দেখবে না। বাংলাদেশের দর্শকদের জোর করে বাংলা সিনেমা দেখাতে হয়।

একই কথা টিভি নিয়ে। বিদেশী চ্যানেলের ঠেলায় বাংলা চ্যানেল শেষ? বাংলা চ্যানেল তো চলেই না। সারাদিন দেখি জিটিভি স্টার টিভি এসব চলে প্রতি ঘরে ঘরে। কেন? উত্তর একই, কোয়ালিটি। আমাদের টিভি চ্যানেল প্রতিযোগিতায় টিকতে পারছে না।

এমন হলে আসলেই বিদেশি সিনেমা-টিভি এসব বন্ধ করে দেয়া উচিত। কারন দেশিয় প্রোডাকশন মানুষ দেখছে না বিদেশিগুলোর জালায়। কি করব, বিদেশী সিনেমাগুলো এত হাই-কোয়ালিটি যে না দেখে থাকা যায় না। আসলেই বন্ধ করে দেয়া উচিত। তাহলে মানুষ বাধ্য হবে আমাদের বানানো বস্তাপচা সিনেমা দেখতে। আর না দেখলে ইন্টারনেটে ডাউনলোড করে দেখবে বিদেশী সিনেমা।

আমাদের এই মহুর্তে উচিত কোয়ালিটি সিনেমা বানানো, কোয়ালিটি প্রোডাকশন বানানো যাতে এসব বিদেশী সিনেমা টিভিকে দেশের দর্শক ঝেটিয়ে বিদায় করে দেয়। আমার মান বাড়াতে হবে। আমাদের কাজের মাধ্যম বদলাতে হবে। সিনেমা সিনেমার মত করে বানাতে হবে। এমন কিছু যা নতুন, আনকোরা। তাহলে বিদেশী চ্যানেল বলেন আর সিনেমা বলেন কোন কিছুই ভাত পাবে না।

বাংলাদেশের দর্শক অনেক স্মার্ট দর্শক। তারা সবদেশী সিনেমা টিভি দেখতে অভ্যস্ত। এগুলো দেখে দেখে তারা ছোট থেকে বড় হয়েছে। তাঁদের দয়া করে গাধা মনে করবেন না। বরং দর্শকের মনজয় করার কথা ভাবুন। আমাদের দেশের দর্শক বস্তাপচা সিনেমা দেখতে অভ্যস্ত না। সিনেমা মেকার আর কজন…… কিন্তু দর্শক কতজন ভাবুন।

জয় হোক বাংলা সিনেমার।

আপনার মন্তব্য