সাংঘাতিক স্মার্ট ওয়াচ!!!!!

6798
SHARE

ঘড়ির ব্যাবহার প্রাচীন কাল থেকে চলছে। আগে মানুষ শুধু সময় দেখার জন্য ঘড়ি ব্যাবহার করত। হাতে মোবাইল আসার পর ঘড়ির ব্যাবহার অনেকটা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল বললেই চলে। কেনোই বা হবে না মোবাইল এ আপনি সময় সহ ক্যালেন্ডার এবং নানা সুবিধা পাবেন যা সাধারণ হাত ঘড়িতে নেই। কিন্তু এখন সময় আবার পালটাচ্ছে ফিরে আসছে আবার হাত ঘড়ির ব্যাবহার কারণ বাজারে এখন পাওয়া যাচ্ছে নানা ব্র্যান্ড এবং কোম্পানির স্মার্ট ঘড়ি যা আপনার মোবাইল ফোনের সাথে কানেক্ট হয়ে মোবাইল এর সব দরকারি ফিচার আপনার হাতের কবজিতে এনে দিচ্ছে। তাই আজকের লেখা স্মার্ট ওয়াচ নিয়ে । বাজারে নানা ব্র্যান্ড থাকলেও আজ লেখা হয়েছে অ্যাপল কোম্পানির স্মার্টওয়াচ ” দ্যা অ্যাপল ওয়াচ ” নিয়ে।

” The Apple Watch ”  অ্যাপল কোম্পানির স্মার্টঘড়ি। এতে অপারেটিং সিস্টেম ছাড়াও রয়েছে ফিটনেস ট্র্যাকিং। এই ডিভাইস এর চারটি মডেল বর্তমানে বাজারে আছে :-Apple Watch Sport, Apple Watch, Apple Watch Hermès, and Apple Watch Edition. ২০১৫ সালে ২৪ এ এপ্রিল প্রথম বাজারে ছাড়ে। দাম বেশি হলেও ভাল বাজার মাত করেছিল এই অ্যাপল প্রোডাক্ট। এই স্মার্টঘড়িতে রয়েছে অ্যাপল এর নিজস্ব অপারেটিং সিস্টেম WatchOS এটি অ্যাপল এর iOS উপর ভিত্তি করে বানানো হয়েছে। এর মেমোরি হচ্ছে ৫১২ এমবি DRAM এবং ষ্টোরেজ হচ্ছে ৮ জিবি। ব্যাটারি হছে Li-Po battery 38mm 3.8 V 0.78 W·h ( ২০৫ mAH ) । অ্যাপল ওয়াচ এর প্রধান লক্ষ্য ছিল মানুষকে তাদের মোবাইল থেকে মুক্ত করা । এই সম্পর্কে অ্যাপল ইনকর্পোরেটেড এর টেকনোলজি বিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট  Kevin Lynch  বলেন ” People are carrying their phones with them and looking at the screen so much. People want that level of engagement. But how do we provide it in a way that’s a little more human, a little more in the moment when you’re with somebody?. The Apple Watch works by connecting via Bluetooth to the phone and accessing any Watch compatible apps stored on the mobile device. Apple’s development process was held very much under wraps until a Wired article revealed how some internal design decisions were made “.

অ্যাপল ওয়াচ S1 সিস্টেম অন এর চিপ ব্যবহার করে। এতে কোনো বিল্ট ইন জিপিএস চিপ নেই। এটি “Taptic Engine” নামক একটি linear actuator ব্যাবহার করে যা আপনার আইফোন থেকে  ব্লুটুথ এর মাধ্যমে নোটিফিকেশান আদান প্রধান করে। এই স্মার্টঘড়িতে বিল্ট ইন হার্ট রেট সেন্সর রয়েছে । আর যখন অ্যাপল ওয়াচ একটি আইফোন সঙ্গে কানেক্ট করা হয়, আইফোনের সব গান নিয়ন্ত্রিত এবং মেসেজ ও ইমেইল অ্যাক্সেস করা যায় হাতের  অ্যাপল ওয়াচ থেকে।

এই অ্যাপল ওয়াচ এর বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় ৩০০ থেকে ৩৫০ ইউ এস ডলার (from Amazone) বাজারে নানা ব্র্যান্ড থাকলেও অ্যাপল কোম্পানির জিনিস মানুষের মন কাড়ে সহজে।  

আপনার মন্তব্য