সাবধান! রামপাল নিয়ে কথা বলা আর জংগী কার্যক্রমে যুক্ত থাকা – একই কথা!

27
SHARE

এমনিতে জংগী সমস্যা নিয়ে মানুষের মনে ভয়ের অভাব নেই। যদিও প্রশাসনের পদক্ষেপ গুলো বেশ দারুন এবং সফল। জংগী দমন অভিযান চলছে সেই গতিতে। পালের গোদা গুলো ধরাও খাচ্ছে। এটা বেশ ভাল একটা লক্ষন। তবে মরার উপরে খরার ঘা হিসেবে একটা ব্যাপার যুক্ত হয়ে গেছে। গতকাল বেশীরভাগ টিভি চ্যানেলের ব্রেকিং নিউজ ছিল মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রেস কনফারেন্স। যেখানে একটি মন্তব্যকে বার বার ফলাও করে প্রচার করা হচ্ছিল “রামপালের বিরোধীরা এবং জঙ্গীদের পেছনের শক্তি একই দেশ বিরোধী শক্তি”। কথাটা শুনে মনটা একটু খারাপ হয়ে গেলেও পরবর্তীতে চিন্তা করে দেখলাম – এতো হতেই পারে! কেন নয়!

এখন রামপালের বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিরোধিতা করলেই কিন্তু বিপদ আছে। আপনি কিন্তু রাষ্ট্রদ্রোহী, দেশ বিরোধী শক্তিতে পরিণত হতে পারেন। প্রেস কনফারেন্সের কিছুটা অংশ আমিও দেখেছি। প্রধানমন্ত্রী অনেক যুক্তি দিয়ে বুঝিয়েছেন কেন রামপালের প্রজেক্ট পরিবেশের বা দেশের কোন ক্ষতি করবে না। বরং নানা ধরনের সুবিধা পাওয়া যাবে। এমনকি বিউটিশিয়ানরাও এতে উপকৃত হবেন। এতো বেশ ভাল কথা। বাংলাদেশের তাহলে আর কোন সমস্যাই নেই তাহলে!

রামপাল নিয়ে তো সবাই কমবেশী কথা বলেছে ইতিমধ্যে। আমরাও বলেছি। তবে সরাসরি বিরোধিতা করার শক্তি বা সাহস কোনটাই আমাদের নেই। আর করলেও পাত্তা দেয়ার কিছু নেই। Honest Statement দিলাম। যদি রামপাল বিরোধী মানুষজন আর জংগী কর্মে যুক্ত মানুষজন একই গোত্রের হয়ে থাকে, তাহলে এই মুহুর্তে দেশে জংগীমনা মানুষের সংখ্যা কত সেটার একটা হিসেব বের করা উচিত! আমার আশেপাশেই তো তাহলে কয়েকশো জংগী আছে কারন তারা রামপাল বিরোধী মনোভাব নিয়ে নানা কথা বলেছিল। উল্লেখ্য, তারা সরকারবিরোধী কোন কথা বলেনি তবে রামপাল প্রজেক্টের বিরোধিতা করেছিল। তারা ছোটলোক, তাদের দেশপ্রেম খুব সস্তা সুতারাং চিন্তার কিছু নেই। তারা অজ্ঞ জানেনা। দেশপ্রেম তো সব বড় বড় মানুষের কাজ। এসব মানুষের দেশপ্রেম নিয়ে আবার কিসের কি? তাই না! ছাপোষা মানুষের দেশপ্রেম থাকে না। আমাদেরও নেই। কিসের বাংলাদেশীজম আর কিসের কি! দেশপ্রেম দেখানোর মত যোগ্যতা এখনও হয়নি। হবেও না। কিভাবে হবে? কিভাবে মন্ত্রী মিনিস্টার হব, বড় বড় সচিব হবো, নেতা হবো? সেই যোগ্যতা কোথায় আমাদের। এই বাংলাদেশীজম প্রজেক্ট তো শুধুই লাইক পাওয়ার একটা ধান্ধা। এসবের কোন ভিত্তি নেই। আর অনেকেই যারা আমাদের “সেরা দেশপ্রেম মূলক” পেজ হিএসবে অনেকে বাহবা দেন, ভাই, আপনাদের মাথা কি ঠিক আছে? আমাদের আবার কিসের দেশপ্রেম ভাই! বুঝেন না, আপনাদের বোকা বানাই বড় বড় কথা বলে! আর কিসের দেশপ্রেম! দেশপ্রেম দেখাতে গিয়ে কি এখন জংগী ভবো নাকি! দেশপ্রেমের সার্টিফিকেট নাই আমাদের। এতদিন ধরে আপনাদের বোকা বানিয়েছি! হাহা, আপনারাও চরম বোকা, আমাদের দেশপ্রেমের নাটকে আপনারাও মজেছেন! আরে, আমরা রামপাল নিয়ে কথা বলেছিলাম না একটু করে। খারাপ কিছু বলিনি তবে, এটা কিসের দেশপ্রেম যে রামপাল নিয়ে কথা বলে! ধুর!

রামপালের বিরোধিতা করা আত্মহত্যার সামিল! এটি দেশের জন্য অনেক সুফল বয়ে আনতে যাচ্ছে। সুন্দরবনের ভবিষ্যত আরো ভাল হতে যাচ্ছে। রামপালের প্রজেক্টের কারনে দেশের নানা পদের মানুষ অনেক উপকৃত হবে। পরিবেশবাদীদের কথায় কান দিবেন না! নিজের মুখকেও বিশ্বাস করবেন না। আপনি কি পরিবেশ ইঞ্জিনিয়ার? কি আপনার যোগ্যতা? গাড়ি থেকে কালো ধোয়া বের হওয়া আর রামপালের কয়লা থেকে ফ্লাই এশ বের হওয়া, ধোয়া বের  হওয়া এক জিনিষ না! কি দেশের টানে কথা বলেন? আরে! আপনার দেশপ্রেম কি মন্ত্রী-মিনিস্টারদের চাইতে বেশী নাকি? কোন যোগ্যতায় আপনি দেশপ্রেম দেখান! সাধারন মানুষ সাধারন মানুষের মত থাকেন। বেশী উড়ার দরকার নাই। এটা বাংলাদেশ। খালি খালি জংগী খাতায়, দেশ বিরোধি খাতায় নিজের লেখাবেন না। দেখছেন না দেশে জঙ্গী দমন অভিযান চলছে!

যেহেতু রামপালের বিরোধিতা করা, রামপাল নিয়ে কথা বলা বা কোন মন্তব্য করার যোগ্যতার অভাব আছে আমাদের আর এটি রীতিমত একটি ক্রাইমের সমান, দেশদ্রোহিতার সমান, তাই আমরা ঠিক করেছি এই রামপাল নিয়ে কোন কথাই আর বলব না, না করব কোন মন্তব্য। জঙ্গী হবার ইচ্ছে নেই। দেশ দ্রোহী হবার ইচ্ছে নেই। আমাদের দেশপ্রেমের সার্টিফিকেট নেই, ইঞ্জিনিয়ার সার্টিফিকেট নেই। একই সাথে আমাদের দেশপ্রেম দেখানোর যোগ্যতাও নেই। যোগ্যতার অভাবে আমরা রামপাল ইস্যুতে কোন কথা বলব না আর। যদিও আমরা তেমন কিছু বলিনি কোনদিন কিছু ফ্যাক্টস ছাড়া। কিন্তু এখন সেটাই বন্ধ কারন দেশপ্রেমের যোগ্যতায় আমরা বড় মানুষের সাথে হেরে গেছি। এখন শুধু চেয়ে চেয়ে দেখব। বড় কর্তারা সব জানেন। বড় নেতারা সব জানেন। তারা মহান। তাদের দেশপ্রেম মহান। দেশ তো তাদেরই। সুতারাং দেশের সার্থ তারাই সবেচেয়ে বেশী বুঝেন। আমাদের মত ২ টাকা দামের সাধারন নাগরিকের দেশপ্রেম কি সে তোপে টেকে? নাহ, টেকে না। টেকার কথাও না।

তাই রামপাল নিয়ে আমরা চুপ। একেবারে চুপ। কোন আওয়াজ আর থাকবে না। আপনারাও হুদাই জংগী হবেন না। কি দরকার! তবে, একদা কোথাও শুনেছিলাম … “Silence is the most powerful SCREAM”.

আপনার মন্তব্য