খালিস্তানের কান্না !!! শিখদের স্বাধীনতা সংগ্রাম এবং অতঃপর……আমাদের শিক্ষা

03_06_2016-03operationbluestar1

প্রত্যেকটা জনপদের একটা নিজস্ব ভাবধারা বা ভাবগত বৈশিষ্ট্য থাকে, যা নির্ধারণ করে ঐ অঞ্চলের জীবনাচরণ তথা সংস্কৃতি, কৃষ্টি । যার প্রভাব আশপাশের জনপদের মাঝেও প্রচ্ছন্নভাবে হলেও ক্রিয়াশীল থাকে । বহু দূর থেকে এসে ঐ জনপদকে স্বল্প সময়ে মূল্যায়ন করা শুধু দূরহই নয় বরং অসম্ভব ! তাই কোন জনপদের সংকট নিরসনে স্থানীয় নির্দেশনা বা পরামর্শ আবশ্যক ! কিন্তু দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের দুর্ভাগ্য যে, এই অঞ্চলের সবকটি রাষ্ট্রই অপেক্ষাকৃত নবীন এবং জন্মলগ্ন থেকেই বেশকিছু সমস্যা  দ্বারা আক্রান্ত । তার উপর আছে এই অঞ্চলের রাজনীতীতে আন্তর্জাতিক প্রভাব ও এই অঞ্চলের রাজনীতিবিদদের রাষ্ট্র পরিচালনায় অনভিজ্ঞতা !

ফলাফল হল বিভিন্ন স্থানীয় সমস্যা সমাধানে ভুল পদক্ষেপ গ্রহণ ও দীর্ঘমেয়াদী জটিলতার সূত্রপাত ! যার একটি উৎকৃষ্ট উদাহরণ খালিস্তান আন্দোলন ও এর ফলাফল !

ভারতের পাঞ্জাব প্রদেশ একটি শিখ সংখ্যা গরিষ্ঠ অঞ্চল ! এই অঞ্চলে ব্রিটিশ আধিপত্যের আগে অঞ্চলটি বিভিন্ন শিখ শাসিকগণের অধিনস্থ ছিল। এমনকি ১৭৬০-৬৫ সাল থেকে ১৮০০ সালের কিছু আগে পর্যন্ত আলাদা আলাদা শিখ শাসকগণের শাসন জারি ছিল এই অঞ্চলে । মহারাজা রণজিৎ সিং এর হাত ধরে সমগ্র পাঞ্জাব এক হয় !

স্বাধীন এই অঞ্চলটি ব্রিটিশদের অধিনস্থ হলেও দেশ বিভাগের সময় লাহোর প্রস্তাবের অনুকরণে শিখদের জন্য আলাদা স্বাধীন রাষ্ট্রের চিন্তায় “ পাঞ্জাবী সুবা” আন্দোলন মাথাচাড়া দিয়ে উঠে, যার জন্য কাজ করেছে ১৯২০ সালে সৃষ্টি একটি শিখ রাজনৈতিক দল “ আকালী দল ” ! বিভিন্ন কারণে এই আন্দোলন আবার স্তিমিতও হয় । যার একটি প্রধান কারণ ছিল পাঞ্জজাবের কোন অঞ্চলে শিখদের একক সংখ্যা গরিষ্ঠতা না থাকা ! এদিকে স্বাধীন থাকাকালীন শিখ শাসকগণ আফগান মুস্লিমদের সাথে যুদ্ধে লিপ্ত থাকত । দেশ বিভাগের পর পাঞ্জজাবের পাকিস্তান অংশের শিখরা ভারতে পাড়ি জমায় । এতে করে পাঞ্জজাব ছাড়াও  হারিয়ানা , হিমাচাল প্রদেশ এবং রাজস্থানের কিছু অংশে শিখদের সংখ্যা বেড়ে যায় ।

নানান অভাব অভিযোগ থেকে ধীরে ধীরে শিখদের মাঝে আবার স্বায়ত্তশাসনের দাবি উঠে ১৯৫০ সালের দিকে । নব্য ভারত সরকার সে দাবি প্রত্যাখ্যান করল । ফলে একদিকে চলতে লাগল শিখদের আন্দোলন-দাবি আর অন্য দিকে সরকারী দমন-পীড়ন ! এওরই মধ্যে ১৯৬৫ সালে বেধে গেল ভয়াবহ পাক-ভারত যুদ্সবাএ সময় চতুর্মুখী চাপে ভারত সরকার শিখদের জন্য আলাদা প্রদেশ ঘোষণা করে  এবং বাকি অংশকে হারিয়ানা এবং হিমাচাল প্রদেশে বিভক্ত করে !

কিন্তু শিখদের মাঝে পূর্ণ স্বায়ত্তশাসনের প্রবণতা কেন্দ্রীয় সরকারের মনে ভীতি সঞ্চার করে । তাদের ধারণা হয় স্বায়ত্তশাসন, খালিস্তান প্রস্তাব এগুলো একটি পুর্ণাংগ শিখ রাষ্ট্রের রোড ম্যাপ । সরকার প্রোণদনার পথ বেছে না নিয়ে সন্দেহের চোখে দেখতে শুরু করে ! তাতে বৈষম্য প্রকট হয়ে উঠে । ব্যাস স্বায়ত্তশাসনের আন্দোলন স্বাধীনতার দিকে ধাবিত হতে শুরু করে !

১৯৭০-৮০ সালে খালিস্তান আন্দোলন জোরদার হয় । ধীরে ধীরে কেন্দ্রীয় সরকারের আশংকা বাস্তবে রুপ নিতে থাকে ! খালিস্তান দাবিতে সশস্ত্র বিদ্রোহীদের আত্মপ্রকাশ ঘটে ! সরকারী বাহীনী ও বিদ্রোহীদের মাঝে আক্রমণ ও প্রতি আক্রমণের ঘটনা ঘটতে থাকে !

এদিকে আফগানিস্তানে তখন তৎকালীন সোভিয়েত রাশিয়ার আধিপত্য !  আফগান রাজনীতি ও রাষ্ট্র ব্যাবস্থা তখন স্থানীয় আফগান নেতাদের ক্ষমতা লিপ্সা, লোভ ও লোভ থেকে সৃষ্ট দ্বন্দে পুরোপুরি রাশিয়ানদের নিয়ন্ত্রণে !

রাশিয়ানরা ভারতে নিজেদের প্রভাব প্রতিষ্ঠার জন্য তৎকালীন ভারত সরকারকে পরামর্শ সহায়তা দিতে এগিয়ে এলো ! তাদের পরামর্শে ভারত সরকার দমন নীতির পথ বেছে নিল । শিখ জেনারেল কুলদীপ সিং ব্রারের কমান্ডে ১৯৮৪ সালের জুন মাসে পরিচালিত হয় “ Operation Blue Star ”  নামের এক ভয়াবহ সামরিক অভিযান !!!

Lt-Gen-KS-Brar

536830_145061649001866_720861356_n

এই অভিযানের প্রাণহানী ও অন্যান্য ক্ষয়ক্ষতির যেই হিসেব দেয়া হয়,  ধারণা করা হয় বাস্তবে তা আরও অনেক অনেক বেশি ! এতটাই বেশি যে তা ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর প্রাণনাশের কারণ হয়ে দাঁড়ায় !  ঐ বছরেরই (১৯৮৪ সাল )  অক্টোবরের ৩১ তারিখে ইন্দিরা গান্ধী তার দুই শিখ দেহরক্ষীর গুলিতে মারা যান !

IndiraGandhi

ব্যাস সাথে সাথে সারা দেশে শিখ বিরোধী রায়ট শুরু হয়ে যায় ! খুঁজে খুঁজে শিখদের হত্যা করা হয়- আবাল, বৃদ্ধ, বণীতা !!! প্রাথমিক ভাবে প্রশাসন নিশ্চুপ থাকলেও পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়ার চেষ্টা করে ! শেষ রক্ষা হয় !

আজকের পাঞ্জাবে শিখদের সাথে অন্য ধর্মাব্লম্বীদের সহাবস্থান ! নতুন প্রজন্ম বর্ত্মান সময়ের পরিবেশ পরিস্থিতির সাথে অভ্যস্থ হয়ে উঠছে ! বিভীষিকা আর স্বজন হারানোর ব্যাথা বয়ে বেড়াচ্ছে শুধু পুরনোরা ! তাদের মৃত্যুর সাথে মিটে যাবে সেই সমস্যাও ! পাঞ্জাবের তরুণ প্রজন্মের একটা অংশ ডুবে থাকবে নেশার রাজ্যে ! কেটে যাবে দিন !

কিন্তু সমস্যা সমাধানের আরেকটা পথ হতে পারত ভালোবাসা ! তাহলে পাঞ্জাবের শিখদের একটা জেনারেশনকে ভয়াবহ নির্মমতার সাক্ষী হতে হত না !

লোভ, সন্দেহ, নির্মমতা !!!   Very Bad !!!

 

আপনার মন্তব্য
(Visited 1 times, 1 visits today)

About The Author

Bangladeshism Desk Bangladeshism Project is a Sister Concern of NahidRains Pictures. This website is not any Newspaper or Magazine rather its a Public Digest to share experience and views and to promote Patriotism in the heart of the people.

You might be interested in