মহাত্মা গান্ধীর পুনর্জন্ম হয়েছে!!

52
SHARE

ডেস্ক : ভারতীয় উপমহাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম নায়ক মহাত্মা গান্ধী দুনিয়া থেকে বিদায় নিয়েছেন সেই কবে। ১৯৪৮ সালের ৩০ জানুয়ারি নথুরাম গডসের বন্দুকের গুলি নিভিয়ে দিয়েছিল গান্ধীজির জীবন প্রদীপ। সেও তো প্রায় ৭০ বছর আগের কথা।কিন্তু এরই মধ্যে এমটিলাইভ নামের একটি সাইট ছবিসহ খবর দিয়ে তোলপাড় ফেলে দিয়েছে।গান্ধীজি ফিরে এসেছেন! তিনি আছেন এখন কুয়েতে। সেখানের এক দোকানে গান্ধীজি বিক্রি করছেন আধুনিক যুগের ডিজিটাল পণ্য মোবাইল!

unnamed
তাহলে কি মহাত্মা গান্ধীর পুনর্জন্ম হয়েছে?বিশেষ করে হিন্দু ধর্মে পুনর্জন্মের বিষয়টি তো রয়েছেই।বায়ু যেমন ফুলের গন্ধ নিয়ে অন্যত্র গমন করে, তেমনই এই জড় জগতে জীব এক শরীর থেকে অন্য শরীরে তার জীবনের বিভিন্ন ধারনাগুলি নিয়ে যায়। (গীতা ১৫/৮) এছাড়াও শ্রীমদ্ভগবদগিতার ২য় অধ্যায়ের ১৩-৩০নং শ্লোকে পুনর্জন্ম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। শ্রীমদ্ভাগবতে বর্ণিত আছে, ভরত মহারাজ পরপর তিনবার পুনর্জন্ম নেন। রাজা হিসেবে, হরিণ হিসেবে,আবার মানব হিসেবে। (স্কন্দ ৫, অধ্যায়-৮)

এমটিলাইভ সাইটের Mahatma Gandhi found in Mobile Shop last day!!! শিরোনামের খবরে বলা হয়েছে, You will definitely put your hands on head and wonder once you come to meet this guy in Kuwait. You will start recollecting the face that you once find in your history text book, the face that you see in many channels and news paper.
Yes this man looks very much alike as our father of the nation great Mahatma Gandhi.  Even the circular style glasses look the very same. Once when this mobile shop owner in Kuwait starts to laugh you will surely lose your control and call him Bapu. The old man’s picture is found shared through WhatsApp and many social media sites.
আসলে মানুষের চেহেরার সাথে পুরোপুরি মিল না থাকলেও প্রায় একই আকার-আকৃতির একাধিক মানুষকে অনেক সময় দেখতে পাওয়া যায়। যা দেখে আমরা বিস্মিত হই।একই সময়ের হলে মনে করি, হয়তো জমজ। আর ভিন্ন সময়ের ঘটনা হলে হয়তো পূর্বের ব্যক্তিটির ফিরে আসার কথাই মনে হতে পারে।যেমন- কুয়েতের ওই মোবাইল দোকান মালিকের ছবিসহ সংবাদ প্রকাশের পর বাংলাদেশের এমন একজন আইনজীবী থাকার খবর পাওয়া গেছে যিনি দেখতে অবিকল মহাত্মা গান্ধী।এমনকি তাকে দেখে লন্ডনের হাই গেটে একজন ভারতীয় গান্ধী ভক্ত রাস্তায় শুয়ে পড়ে ষাষ্টাঙ্গে প্রণাম করেছিলেন।

ঘটনা যাইহোক, কুয়েতের এই মোবাইল দোকানদার দেখতে কিন্তু আসলেই গান্ধীজির মতোই। তাই তাকে দেখে যদি কোন ভক্ত আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন, তাহলে তাকে কি আর দোষ দেয়া যাবে?

আপনার মন্তব্য