ধন্যবাদ এনা পরিবহনকে
October 11, 2016
Bangladeshism Desk (766 articles)
Share

ধন্যবাদ এনা পরিবহনকে

সোহেল হাবিব

ছয়দিন আগে ‘মহাসড়কের আতঙ্ক’ শিরোনামে একটি পোস্ট করেছিলাম। এর মাধ্যমে মূলত আমরা মহাসড়কগুলোতে গতি দানব দুটি পরিবহনের কথা তুলে ধরে যাত্রী এবং পরিবহন মালিকসহ সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে সচেতন করেছিলাম। যাতে কারো অবহেলায় নতুন কোনো দুর্ঘটনা না ঘটে, কারো জীবন যেন ঝড়ে পড়ে অকালে। আমাদের সে পোস্টে পাঠকদের কাছ থেকে ব্যাপক সাড়া পেয়েছিলাম। এখন আরও ভালো লাগছে, এনা পরিবহন মালিক পক্ষের সতর্কতামূলক উদ্যোগ দেখে।

মহাসড়কে দুর্ঘটনা কমাতে দুরপ্লালার বাসের গতিবেগ ৮০ কিলোমিটারের মধ্যে সীমাবদ্ধ করে দিয়েছে এনা ট্রান্সপোর্ট কোম্পানী ইঞ্জিন সীল করে দেয়ায় চালকরা ইচ্ছা করলেও ৮০ কিলোমিটারের উপরে গতিবেগ তুলতে পারবে না দুর্ঘটনা হ্রাসে চালকদের সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তথ্য জানিয়েছেন কোম্পানীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক খন্দকার এনায়েত উল্যাহ

গত শনিবার এক আলোচনা সভায় এনা ট্রান্সপোর্টের পক্ষ থেকে প্রতি মাস পর তিনজন করে সেরা চালককে ৫০ হাজার টাকা পুরস্কার তার সব ধরণের চিকিৎসা সেবা ফ্রি করে দেয়ার ঘোষণা দেয়া হয় নিয়ম মেনে গাড়ি চালানোসহ চালাকদের ব্যবহার, আচরণ, পোষাকসহ সব দিক বিবেচনা করে সেরা চালক নির্বাচন করা হবে

তবে এনা ট্রান্সপোর্টের পরিচালক আতিক বলেন, এনা ট্রান্সপোর্ট দীর্ঘদিন ধরে সুনামের সাথে ব্যবসা করে আসছে দুএকটা দুর্ঘটনার কারণে এনার সুনাম ক্ষুণ্ন করার জন্য একটি মহল বিভিন্ন মিডিয়াতে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে তিনি দুর্ঘটনার বিষয়ে চালকদের আরও সচেতন হওয়ার আহবান জানান।’

কিন্তু এনা পরিবহনের বিরুদ্ধে যে কেউ ইচ্ছেকৃত লাগেনি তার প্রমাণ হলো-

সেন্টার ফর ইঞ্জুরি প্রিভেনশন অ্যান্ড রিসার্চ বাংলাদেশ (সিআইপিরবি) নামে সংগঠনটি সড়কের প্রকৌশলগত ত্রুটি, এডুকেশন এবং অ্যাডভোকেসি নিয়ে কাজ করেতাদের পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, ঢাকাসিলেট মহাসড়কে ৩০ থেকে ৩৫ ভাগ দুর্ঘটনার জন্য দায়ী দূরপাল্লার বাস। আর সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ঘটাচ্ছে এনা বাস। মহাসড়কে বাসের গতি যেখানে ৮০ থাকার কথা, সেখানে ১০০ থেকে ১২০ গতিতে ছুটে চলে

সিআইপিরবি গবেষক প্রকৌশলী আরিফ উদ্দিন বাংলানিজকে জানান, এনা বাসের দুর্ঘটনার কারণ তার বেপরোয়া গতি। ঢাকাসিলেট মহাসড়কের হবিগঞ্জ, আশুগঞ্জ থেকে সিলেট পর্যন্ত ১৫টি ঝুঁকিপূর্ণ পয়েন্ট সহ মহাসড়কে অন্তত ৩০ ঝুঁকিপূর্ণ স্পট রয়েছে। যেগুলো ব্লাকস্পট হিসেবে এখনও চিহ্নিত নয়

যাত্রীদের বক্তব্য হচ্ছে, ঢাকাসিলেট রুটে এনা বাসের চালক অন্য বাসের সঙ্গে যেন প্রতিযোগিতায় মেতে ওঠেন। কত দ্রুত পৌঁছাতে পারেন গন্তব্যে সেই চেষ্টায় থাকেন সব সময়

আতিক সাহেবের বক্তব্যের উত্তরে আমরা বলতে চাই, যদি সমালোচনা না হতো তাহলে আপনারা সচেতন হতেন কী করে? আর আপনাদের চালকদের যদি কোনো সমস্যা না থাকতো তাহলে গতি সীমা ৮০ কিলোমিটারে সীমাবদ্ধ করার প্রয়োজন হলো কেন?

তাই আপনাদের সমালোচনা যে একেবারে অমূলক ছিল না  তাতো আপনাদের গৃহীত সিদ্ধান্তের মধ্যেই স্পষ্ট।

যাইহোক, তারপরও যেহেতু এনা পরিবহন সতর্কতামূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে, তাই তাদের প্রতি আমরা সাধুবাদ জানাচ্ছি। একই সাথে আশা করছি, তাদের উদ্যোগ সঠিকভাবে কার্যকর হবে। আর এনা পরিবহনের উদ্যোগ দেখে অন্যান্য পরিবহন মালিকও সতর্ক হবেন সে প্রত্যাশাও করি।

কেননা, আর একটি দুর্ঘটনাও ঘটুক সেটা আমরা চাই না।

বাংলাদেশীজম রিলিজ ( ইউটিউব রিলিজ ) –

আপনার মন্তব্য