একটানা ১০ মাস আকাশে
November 9, 2016
Bangladeshism Desk (767 articles)
Share

একটানা ১০ মাস আকাশে

সোহেল হাবিব  

আচ্ছা একটি পাখি সবোর্চ্চ কত সময় আকাশে  উড়তে পারে বলে আপনি মনে করেন? কয়েক ঘণ্টা বা বড়জোর কয়েক দিন? কিংবা তার চেয়েও কিছু বেশি সময়?

কিন্তু আপনাকে যদি বলা হয় যে এমন একটি আছে, যেটি কোথাও না বসে একটানা ১০ মাস উড়তে পারে, তাহলে? কি, খুবই অবাক হয়েছেন তাই না? আসলে  অবাক হওয়ারই কথা।

আর অবাক করার ঘটনা হলেও এটা সত্যি যে কমন সুইফট নামের এক জাতের পাখি আছে যারা কোনো বিশ্রাম না নিয়েই একটানা ১০ মাস আকাশে উড়তে পারে। রীতিমতো বৈজ্ঞানিক গবেষণা শেসে পাখি গবেষকরা তেমনটাই দাবি করেছেন।

কমন সুইফট নিয়ে গবেষণাকারীদের বক্তব্য হচ্ছে, প্রতি জুলাইয়ে এরা দল বেঁধে ইউরোপ ছেড়ে পাড়ি জমায় আফ্রিকার পশ্চিম মধ্যাঞ্চলে।  ফিরে আসে একেবারে পরের বছরের জুন মাসে। এই সময়ের মধ্যে ১০ মাস ধরে তারা প্রায় একটানা উড়ে চলে। কমন সুইফটরা আফ্রিকায় গেলেও হয়তো সেখানকার মাটিতে একবারও পা রাখে না।

শুধু তাই নয়, এরা উড়ন্ত অবস্থাতেই তাদের যাবতীয় কর্মসম্পাদন করতে পারে। সুইডেনের লান্ড ইউনিভার্সিটির গবেষক সুসান আকেসন বলেন, মাঝারি আকারের এই পাখিরা উড়ন্ত অবস্থায়ই খায়, সঙ্গীর সঙ্গে মেশে এবং যাবতীয় কাজ  সেরে নিতে পারে। তারা কোনো গাছের ডালে বা বাড়ির ছাদে অথবা অন্য কোথাও নামতে পারে, কিন্তু ভূমিতে নয়। কারণ, কমন সুইফটের ডানা অনেক  বেশি লম্বা আর পাজোড়া খুব ছোট।

পায়ের আকৃতি এত ছোট বলেই এরা সমতল থেকে উড়াল দিতে পারে না। ফলে পাখিটি প্রকৃতির সবচেয়ে শক্তিশালী আকাশচারী প্রাণিগুলোর তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে। দীর্ঘদিন একটানা আকাশে কাটিয়ে দেওয়ার অসাধারণ সামর্থ্যই এদের অনন্যতা দিয়েছে।

সত্যিই কি পাখিগুলো এতটা পথ একটানা উড়তে পারে? সন্দেহ হওয়াটাই স্বাভাবিক। পাখিটির এই অদ্ভুত সামর্থ্য সম্পর্কে জানলেও কেউ তা এত দিন নিশ্চিত করতে পারেনি। সুসান আকেসন তাঁর স্বামী অ্যান্ডার্স হ্যাডেনস্ট্রম ১৯টি কমন সুইফটের গায়ে ২০১৩ সালে খুব হালকা যন্ত্র জুড়ে দেন। সেগুলো তথ্য সংগ্রাহক যন্ত্র।

দুই বছর পর পাখিগুলোকে ধরে তাঁরা পেয়ে গেলেন এদের ওড়ার সময়কার নানা তথ্য। যেমন স্থানীয় আলোর মাত্রার নিয়মিত রেকর্ড। আর তা থেকে জানতে পারলেন, পাখিগুলো কখন  কোথায় ছিল। পাশাপাশি এদের ওড়ার গতি, কার্যক্রম এবং শারীরিক অবস্থানের তথ্য ঘেঁটে গবেষক দম্পতি জানতে পারলেন, এরা নির্দিষ্ট সময় উড়ছিল নাকি বিশ্রামে ছিল। সংগৃহীত তথ্যউপাত্ত বলছে, কিছু পাখি ওই দূর যাত্রাপথে প্রায় কখনোই নিষ্ক্রিয় ছিল না।

২০১৩ সালের  সেপ্টেম্বর  থেকে ২০১৪ সালের এপ্রিল পর্যন্ত একটি পাখি মাত্র চার রাত (ফেব্রুয়ারিতে) বিশ্রামে ছিল। পরের বছর এটি কখনোই  কোনো পুরো রাত বিশ্রামে থাকেনি। একই পর্যায়ে পাখিটি মাত্র দুই ঘণ্টার জন্য  থেমেছিল। অবশ্য সব পাখি যে একই রকম আচরণ করে, তা নয়। কিছু কমন সুইফট প্রায়ই জিরিয়ে নিয়েছিল। গবেষক দম্পতির ধারণা, এদের ডানায় বোধ হয় কোনো সমস্যা ছিল। পুরোনো পাখা পড়ে গিয়ে নতুন পাখা না গজালে তো ঠিকমতো ওড়ায় বিঘœ ঘটতেই পারে।

সত্যিই অসাধারণ উড়ার শক্তি রাখে কমন সুইফটরা।

রিলেভেন্ট এই বিষয়গুলোর উপর ভিডিও দেখতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি – ঠিকানা – YouTube.com/Bangladeshism

আপনার মন্তব্য