নৌকা হোটেল
November 12, 2016
Bangladeshism Desk (767 articles)
Share

নৌকা হোটেল

হাসান শাহরিয়ার 

আজ থেকে প্রায় বিশ বছর আগের কথা। রাঙ্গামাটির রিজার্ভ বাজারে বাংলাদেশ বডিং নামে একটি আবাসিক হোটেল ছিল। এখনও আছে কিনা জানি না। তবে সে সময় এটি বেশিরভাগ মানুষের কাছে গরিবের হোটেল নামেই খ্যাত ছিল। সিঙ্গেল বেড ২৫ টাকা আর ডাবল বেড ২০ টাকা করে দিলেই একদিন থাকা যেত।

টাকার পরিমাণ যেমন কম, সেবার মানও তেমনি ছিল। তারপরও অথিতিদের খুব বেশি অভিযোগ থাকত বলে মনে হয় না। কেননা, এখানে যারা থাকত তাদের এর চেয়ে বেশি সেবা না হলেও চলত। ঘটনা চক্রে এক রাত থাকার সুযোগ হয়েছিল আমারও। ছারপোকার যন্ত্রণা থাকার পরেও ঘুমটা ভালোই দিয়েছিলাম মনে হয়। কারণ সকাল বেলা ডেকে না তুললে সময় মতো লঞ্চ ধরা হতো না।

শুধু আবাসিক হোটেল নয়, সে সময় রাঙ্গামাটিতে অতি অল্প টাকায় খাবার খাওয়ারও অনেক হোটেল ছিল। ৫ টাকার ভাত, ৮ টাকার কাচকি/মলা মাছ অথবা ঝুলসহ ডিম আর সাথে ডাল ফ্রি! মোট ১৩ টাকায় ভরপেট খাবার হয়ে যেত। কিন্তু আজ সেসব কেবলই স্মৃতি। সে সময় অবশ্য আজকের মতো পর্যটকদের ভিড় ছিল না রাঙ্গামাটিতে।

পর্যটন শহর রাঙ্গামাটিতে এখন আর এত সস্তায় কিছু পাওয়ার সুযোগ না থাকলেও ফরিদপুরে নাকি এখনো পাওয়া যাচ্ছে। সেখানে নাকি আজকের দিনেও রাতপিছু ২৬ টাকায় হোটেল পাওয়া যায়। তাও আবার নদীর ওপর ভাসমান হোটেল!

সম্প্রতি গণমাধ্যমে প্রকাশিত এক ফিচার নিউজে বলা হয়েছে, ফরিদপুরে বুড়িডাঙা নদীর পারে ঠায় দাঁড়িয়ে থাকা পাঁচটি নৌকার ভেতর রয়েছে থাকাখাওয়ার সুবন্দোবস্ত। অনেকটা আলেপ্পি শ্রীনগরের হাউজবোটের মতো। শুনতে খরচবহুল হলেও, বাস্তবটা একেবারেই উলটো। প্রতিরাতে বেডপিছু খরচ মাত্র ২৬ টাকা। তবে খরচের বিচারে পরিষেবা মেলে খানিক বেশি। পানি টয়লেটের জন্য কোনো বাড়তি খরচ নেই

ঘুরে বেড়ানো যাদের নেশা, তাদের কাছে ২৬ টাকার এই হোটেল বেশ জনপ্রিয়। স্থানীয় শ্রমিক শ্রেণির মানুষও সেখানে থাকতে আসেন। কেউ কেউ থেকে যান মাসের পর মাস। প্রত্যেকের জন্য থাকে ছোট্ট লকার। নৌকা মালিক মো. মুস্তাফা মিয়ান এর বক্তব্য, মোট ৪০ জনের থাকার ব্যবস্থা আছে এই নৌকা হোটেলে। প্রতিদিন ২৬ টাকার বিনিময়ে অন্তত মাস থাকতে পারেন তারা। তবে প্রাইভেট কেবিনগুলির খরচ একটু বেশি। রাতপিছু আনুমানিক ৮৩ টাকা।  

ফিচারটি পড়ে রাঙ্গামাটির বাংলাদেশ বডিংয়ের কথা খুব মনে পড়ছে। ইচ্ছা আছে কখনো ফরিদপুর গেলে অন্তত এক রাত থেকে আসব ওই ভাসমান হোটেলে। সস্তায় যেমন থাকা যাবে, তেমনি রাতের বেলা নদীর মোহনীয় রূপটাও দেখা যাবে।

রিলেভেন্ট এই বিষয়গুলোর উপর ভিডিও দেখতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি – ঠিকানা – YouTube.com/Bangladeshism

আপনার মন্তব্য