আপনার বাসার গ্যাস লাইনটি পুরানো হলে দ্রুত চেক করে নিন

27
SHARE

হাসান শাহরিয়ার :

নগরজীবনে বাসাবাড়িতে রান্নার কাজে ব্যবহারের গ্যাস লাইন না থাকাটা আজকাল কল্পনাই করা যায় না। তাই শুধু শহরের হাইরাজ বিল্ডিংয়ের আবাসিক ভবনই নয়, বরং উপশহর এলাকার অনেক কাঁচা বাড়িঘরেও গ্যাসের সংযোগ আছে। আর যাদের বাসাবাড়িরগ্যাসলাইনটিপুরানোতাদেরউচিৎদ্রুতইলাইনগুলোচেককরেনিজেরনিরাপত্তানিশ্চিতকরা।

কেননা, সামান্য অসতর্কতার কারণেই আপনার বাসার গ্যাস লাইনটি মৃত্যু ডেকে আনতে পারে আপনার। পুরানো গ্যাস লাইনে লিক তৈরি হওয়াটা খুব স্বাভাবিক। আর সেই লিক থেকে গ্যাস ছড়িয়ে ঘটতে পারে ভয়াবহ ঘটনাও।এমনকি মৃত্যুর কারণ হতে পারে এটি। তাছাড়া, শুধু লাইন নয়, বরং গ্যাসের চুলার সংযোগস্থল থেকেও অনেক সময় গ্যাস লিক হতে পারে, নজররাখতেহবেসেদিকেও।

কদিন আগেই রাজধানী ঢাকার কদমতলী থানার জুরাইনে গ্যাসের আগুনে দগ্ধ হয়েছেন একই পরিবারের কয়েক সদস্য। এতে প্রথমে তাদের সন্তান রনি (১০) মারা যাওয়ার কয়েকদিন পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় স্বামীস্ত্রীও মারা গেছেন। নিহতরা হলেন আবুল কালাম আজাদ (৪৫) ও তার স্ত্রী জেসমিন বেগম (৪০)

জানা যায়, গত ২২ অক্টোবর ভোরে ঘুম থেকে উঠে আবুল কালাম আজাদ সিগারেট ধরানোর জন্য দিয়াশলাই জ্বালান। আর তখন গ্যাসের আগুন ছড়িয়ে পড়ে পুরো ঘরে। এতে দগ্ধ হন আবুল কালাম আজাদ, তার স্ত্রী জেসমিন বেগম, ছেলে রনি, আবুলকালামআজাদেরভাতিজিশারমিনআক্তার।এছাড়াপাশেরবাসারসাড়েতিনবছরেরশিশুসোহানাওদগ্ধহয়।তাদেরকেওইদিনইঢাকামেডিকেলকলেজহাসপাতালেরবার্ণইউনিটেভর্তিকরাহয়।

আবুল কালাম আজাদের ভাতিজি শারমিনের শরীরের ৩৫ শতাংশ এবং পাশের বাসার শিশু সোহানার শরীরের ১০ শতাংশ ঝলসে গেছে। তারাও আশঙ্কামুক্ত নন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।  

গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, গত ১ অক্টোবর পরিবারের সদস্যদের নিয়ে আবুল কালাম আজাদ ওই বাসায় ভাড়া উঠেছিলেন। প্রথম দিনই স্ত্রী জেসমিন বেগম রুমের ভিতরে তীব্র গ্যাসের গন্ধ পান। বিষয়টি বাড়িওয়ালাকে জানানোর পর তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়। কিন্তু কয়েকদিন যাওয়ার পরও তিতাস কর্তৃপক্ষ কিংবা অন্য কেউ গ্যাসের লাইন মেরামত করেনি। এ অবস্থায় বাড়িওয়ালা মোজাফফর হোসেন নিজেই মিস্ত্রী ডেকে গ্যাস পাইপটি ইট সিমেন্ট দিয়ে প্লাস্টার করে দেন।  কিন্তু গ্যাসের লিকেজ বন্ধ করা সম্ভব হয়নি।  

আর তার পরিণতি তো বুঝাই গেল। এখন হয়তো তদন্ত হবে, লাইন ঠিক হবে। কিন্তু তাতে কি ওই জীবনগুলো আর ফিরে আসবে? নিশ্চয়ই না, সে কারণেই সতর্ক হতে হবে আমাদেরকেও। চলুন আমাদের নিজ নিজ বাসাবাড়িরগ্যাসলাইনগুলোএকবারচেককরেদেখেনিই।

আপনার মন্তব্য