মোবাইলে ইনকামট্যাক্স কর্মকর্তার নামে প্রতারণা থেকে সাবধান

34
SHARE

ইশতিয়াক আহমেদ :
আজকাল মোবাইলফোন ছাড়া এক দণ্ড যেন চিন্তাই করা যায় না। যোগাযোগের সহজ মাধ্যম হিসেবে সবার অতি প্রয়োজনীয় বস্তু হয়ে উঠেছে এটি। এর উপকারিতা যেমন আছে, তেমনি আছে যন্ত্রণাও।

আর প্রতারক চক্রও আছে যারা এই মোবাইল ফোন ব্যবহার করেই ফাঁদে ফেলছে মানুষদের। এ ক্ষেত্রে নারীদের আরও বেশি বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। প্রেমের নামে কথা রেকর্ড করে কিংবা ভিডিও ধারণ করে হয়রানির খবর তো প্রায়ই শোনা যায়। তাছাড়া আছে জীনের বাদশা’র ফাঁদ!

যারা মোবাইলে বিকাশ বা এই জাতীয় অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করেন তাদেরকেও তো কত রকম ফাঁদে ফেলে অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে প্রতারক চক্র। এবার অন্য রকম একটি প্রতারক চক্রের খবর দিয়েছেন এক ফেসবুক বন্ধু।তিনি তার টাইমলাইনে লিখেছেন,

মোবাইলে রিং..
আগন্তুকঃ … বলছেন?
আমিঃ যি, বলছি
আগন্তুকঃ ইনকাম ট্যাক্স ডিভিশনের মিরপুর জোনের কমিশনার সাহেব আপনার সাথে বলবেন।
আমিঃ যি দেন
আগন্তুকঃ আমি কমিশনার … বলছি সেগুন বাগিচা থেকে। আপনারত ব্যবসা ভালই চলছে। আপনার গত বছনে রিটার্নে কোন সমস্যা নেই আমরা সন্তুষ্ট।
তো আমি একটা ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে কল দিয়েছিলাম। আমার একটা মাদ্রাসা আছে বরিশালে। এখানে প্রায় ২০০০ ছাত্র পড়াশোনা করে।
আমি আপনাদের মত লোকদের কাছ থেকে কিছু হেল্প নিয়ে মাদ্রাসাটা চালাই। তো এই বছর অনেকগুলো কিতাব দরকার ছিল। আপনাদের মত অনেকেই সাহায্য করছে। এখন এক সেট কিতাব বাকি আছে। আপনার কাছে দাবি এই এক সেট কিতাব।
আমিঃ খুবই ভাল কথা। আমিত এমনিতেই এই ধরনের কিছু ভাল কাজ করার চেষ্টা করি। তো আপনার বইয়ের নামগুলো এসএমএস করেন। আমি কিনে মাদ্রাসার ঠিকানায় পাঠায় দিচ্ছি।
আগন্তুকঃ বইগুলোর দাম প্রায় ৬০০০ টাকা। বুখারি শরীফের সব খন্ড। তবে আমরা আজকের জন্য একটা অফার পেয়েছি ইসলামী ফাইন্ডেশন থেকে। যেখানে আমি বইগুলো কিনলে ডিসকাউন্ট পাব। ৬০০০ টাকার বই ৪০০০ টাকায় কিনতে পারব।
আমিঃ এই মুহূর্তে টাকা একটু শর্ট আছে আগামী কাল দিতে পারব।
(পরেরদিন)
আমিঃ ভাই আমি সেগুন বাগিচা। আপনার অফিসের কাছেই আছি। টাকাটা নিয়ে আসছি। একটু দেখাও করতাম টাকাটাও দিতাম।
(তখন আমি মিরপুরে আমার অফিসে)
আগন্তুকঃ আমিত ৩ দিনের জন্য ওরসে আসছি। এখন অফিসে নেই।
আমিঃ ঠিকাছে, তাইলে পরে কথা হবে।
(পরের দিন)
আগন্তুকঃ আপনি বলার পর বইগুলো বাকিতে কিনে ফেলছি। তো লাইব্রেরী থেকে ফোন দিলে ৪০০০ টাকা দিয়ে দিয়েন।
(এস এম এসঃ এমদাদিয়া লাইব্ররী, বিকাশঃ…)
লাইব্ররীঃ স্যার,… সাহেব আপনার নাম্বারটা দিলেন। উনি কিছু বই নিছিলেন। তো টাকাটা ঐ নম্বরে বিকশ করে দেন।
আমিঃ ভাই, আমি টাকাগুলো ব্যক্তিগত দিব না। কোম্পানী থেকে দিব। বিকাশ পেমেন্ট কোন সিস্টেম আমাদের কোম্পানীতে নেই। এমদাদিয়া লাইব্ররী অনেক বড় লাইব্রেরী। আপনাদের ব্যংকের কারেন্ট একাউন্ট দেন, আমি ট্রান্সফার দিয়ে দিচ্ছি।
এক সপ্তাহ হয়ে গেল কারেন্ট একাউন্ট আর মিলেনি।

তার মানে হলো ইনকামট্যাক্স কর্মকর্তার নামে এসব করছে কোনো প্রতারক চক্র। অতএব, যারা এধরনের ফোন পাবেন তারা যা করার সতর্ক হয়েই ডিল করবেন বিষয়টি। তা নাহলে দেখা যাবে ফাঁদে পড়ে যাবেন আপনিও।

আপনার মন্তব্য