পানি দিয়েই চলছে মোটর বাইক

57
SHARE

আশরাফুল ইসলাম : যখন-তখন জ্বালানি খরচ বেড়ে যাওয়া এবং জ্বালানি পোড়ানোর কারণে পরিবেশ দূষিত হওয়ায় বিজ্ঞানীরা বিকল্প উদ্ভাবনের চেষ্টা করে যাচ্ছেন দীর্ঘদিন ধরেই। ফলে কেউ জ্বালানি বিহীন, কেউ বাতাসকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করছেন, আবার কেউ পানি দিয়েই জ্বালানির কাজ সারার চেষ্টা করে যাচ্ছেন।

বেশ কয়েকবছর আগের কথা। চট্টগ্রামের এক তরুণ হঠাৎ দাবি করে বসলেন, তিনি এমন এক ইঞ্জিন তৈরি করেছেন যা পানি দিয়েই চলবে। এবং সে যন্ত্র বিক্রির জন্য তিনি পত্রিকায় বিজ্ঞাপনও দিয়েছিলেন। কিন্তু সেটি আর আলোর মুখ দেখেনি। পরে জানা গিয়েছিল এটি আসলে ছিল এক ধরনের প্রতারণা।

কিন্তু এবার মনে হচ্ছে পানি দিয়ে চালিত সেই যন্ত্রটা বাস্তব হয়েই ধরা দিয়েছে। অবাক লাগলেও এই জল গাড়ির স্বপ্ন সত্যি হতে চলেছে৷ সুদূর ব্রাজিল থেকে এসেছে সেই খবর৷

অভিনব এক বাইক বানিয়েছেন রিকার্ডো অজবেডো নামের এক আবিষ্কারক৷ তিনি ব্রাজিলেই থাকেন৷ সরকারি কর্মী৷ মোটর বাইকে ঘোরা তাঁর শখ৷ জ্বালানি তেল বাঁচাতে তিনি তৈরি করে ফেলেছেন পানি দিয়ে চলা বাইক৷

রিকার্ডোর এই মোটার বাইকের বিশেষত্ব হল তার ব্যাটারি৷ এই ব্যাটারি পানিতেই চার্জ হয়৷ বিশেষ প্রক্রিয়ায় পানি থেকে হাইড্রোজেন অণু বের হয়ে ইলেকট্রিসিটি তৈরি হয়৷ তাতে চার্জ হয় ব্যাটারি৷ সেই শক্তিতেই চলে বাইক৷

রিকার্ডোর হিসেবে ১ লিটার জলে ৫০০ কিলোমিটার পর্যন্ত যাবে তাঁর পানি গাড়ি৷ বাইকের নাম T-H2O জ্বালানীর জন্য কোনও পরিস্রুত পানিরও প্রয়োজন নেই বলে জানিয়েছেন রিকার্ডো৷ পথ চলতে গিয়ে কোনও জলাশয় বা নদী থেকে এক জার পানি তুলে নিলেই সমস্যা মিটবে৷

এর আগে জানা গিয়েছিল, অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির বায়োলজি বিভাগের একদল গবেষক পানি আর সূর্যের আলোকেই জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করার গবেষণার খবর। পানি ও সূর্যালোককে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করার এই পরীক্ষায় অনেকটাই সফল বলেও দাবি করেছিলেন বিজ্ঞানীরা।
সম্ভবত অস্ট্রেলিয়ান বিজ্ঞানীদের টেক্কা দিয়েছেন ব্রাজিলীয়ান রিকার্ডো। রিকার্ডোর মোটর বাইক ১ লিটার পানিতে চলবে ৫০০ কিলোমিটার৷ সে পানি কিনতে হলে কোনো খরচেরও প্রয়োজন হবে না। এমন একটি স্বপ্নের বাহনের স্বপ্ন কে না দেখতে চাইবে বলুন?

আপনার মন্তব্য