আকাশ ভেসে যাচ্ছে জোছনার বন্যায়

31
SHARE

যে যেখানে আছেন, একবার অন্তত ডিজিটাল ডিভাইসের স্ক্রিন থেকে মুখ তোলে আকাশের দিকে তাকান। নয়ন ভরে একবারের জন্য হলেও দেখুন, জোছনার বন্যায় ভেসে যাচ্ছে আকাশ। আজ ১৪ নভেম্বর সোমবার পূর্ণিমার রাত, তবে অন্য সকল পূর্ণিমার মতো স্বাভাবিক কোনো পূর্ণিমা নয় আজ।

আজকের পূর্ণিমায় চাঁদ পৃথিবীর অনেক কাছাকাছি চলে এসেছে। জ্যোতির্বিজ্ঞানের ভাষায় যাকে বলা হয় সুপারমুন।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে,আজকের সুপারমুন চলতি বছরে হওয়া বাকি সুপারমুনের মতো নয়। এই দিনটিতে চাঁদ এসেছে পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে, সাধারণ দূরত্বের চেয়ে আরও প্রায় ৩১ হাজার মাইল কাছে। সব জায়গা থেকে সমানভাবে দেখা না গেলেও যেখানে আকাশ পরিষ্কার সেখান থেকে দেখা যাবে এই অসাধারণ পূর্ণিমার।

আবহাওয় অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তি থেকে জানা গেছে,  ১৪ নভেম্বর বিকেল ৫ টা ১৯টার দিকে চাঁদ দেশের উত্তরপূর্ব আকাশে উদিত হয়েছে। আর সন্ধ্যা ৭ টা ৫২ মিনিটে শুরু হয়েছে পূর্ণিমাটি। এতটা কাছাকাছি অবস্থানের জন্য এবারের পূর্ণিমায় চাঁদ আমাদের কাছে ধরা দিয়েছে অদ্ভুত রকম বিশাল আকার আর চোখ ধাঁধানো উজ্জ্বলতা নিয়ে।

যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা জানিয়েছে, দূরত্ব কমে যাওয়ার কারণে আজকের সুপারমুনে আকাশে চাঁদের আকার হয়েছে অন্য সময়ের চেয়ে ১৪ শতাংশ বড় আর উজ্জ্বলতা  বেড়েছে ৩০ শতাংশ বেশি।

পৃথিবীর এতটা কাছে চাঁদ সর্বশেষ এসেছিল প্রায় ৬৯ বছর আগে, ১৯৪৮ সালের ২৬ জানুয়ারি। আর আজকের পর এমন বিশাল সুপারমুন ঘটবে আবার সেই ২০৩৪ সালের ২৫ নভেম্বর, ১৮ বছর পর।

জ্যোতির্বিজ্ঞানিদের হিসাব মতে, প্রত্যেক ১৪তম পূর্ণিমাটি হয় সুপারমুন। তবে পৃথিবী থেকে দূরত্ব কমবেশি হওয়ায় তার আকার এবং উজ্জ্বলতাও কমবেশি হয়। যেমন সবচেয়ে কাছের অবস্থানে থাকার কারণে এবারের সুপারমুনে চাঁদ দেখা যাচ্ছে সবচেয়ে বড় আর সবচেয়ে জ্বলজ্বলে।

তাহলে এমন সুযোগ আর হেলায় হারানো যায় কী করে? চলুন, যে যেখানে আছি, একবার মুখ তোলে তাকাই আকাশের দিকে। দেখে নেই চাঁদের অপূর্ব রূপ। ভেসে যাওয়া জোছনার বন্যায় স্নান করে চলুন একটু সময়ের জন্য হলেও হারিয়ে যাই প্রকৃতির মাঝে।

রিলেভেন্ট এই বিষয়গুলোর উপর ভিডিও দেখতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি – ঠিকানা – YouTube.com/Bangladeshism

আপনার মন্তব্য