নওগাঁর ঘোড়াওয়ালি তাসমিনা এখন বিশ্ব তারকা
December 5, 2016
Bangladeshism Desk (754 articles)
Share

নওগাঁর ঘোড়াওয়ালি তাসমিনা এখন বিশ্ব তারকা

ডেস্ক :

নিজের ঘোড়া নেই। তবু ঘোড়দৌড়ে সেরা নওগাঁর তাসমিনা। নিজের ঘোড়া নিয়েই ঘোড়দৌড়ে অংশ নেওয়ার স্বপ্ন ছিল তাসমিনার কিন্তু সেটা পূরণের সামর্থ্য ছিল না দরিদ্র পিতার। তাছাড়া মেয়ে বলে তাকে ঘোড়দৌড়ে অংশ নিতেও নানা জনের নানা কথা শুনতে হয়। তারপরও যেখানেই ঘোড়দৌড়ের প্রতিযোগিতার কথা শুনে সেখানেই ছুটে যায় তাসমিনা।

অন্যের ঘোড়া নিয়েই অংশ নেয় দৌড় প্রতিযোগিতায়। পুরুষ প্রতিযোগীদের ভিড়ে প্রতিবারই প্রথম কিংবা দ্বিতীয় হওয়ার গৌরব অর্জন করে একমাত্র নারী প্রতিযোগী তাসমিনা। কিন্তু খেলা শেষে পুরুস্কার কিংবা টাকার কিছুই জোটে না তার ভাগ্যে। ঘোড়ার মালিকই সব নিয়ে নেন। তিনি খুশি হয়ে কিছু দিলেই সেটা তাসমিনার হাতে আসে। তার চেয়ে বেশি কিছু না।

প্রতিবারেই যখন খেলা শেষে সকল অর্জন অন্যের হাতে চলে যাওয়ার দৃশ্য দেখতে হয় তখন বুক ফেটে কান্না বেরিয়ে আসতে চায়। কিন্তু কিছুই করার নেই। যার ঘোড়া তারই সব। এই কষ্টের দৃশ্য প্রতিবারই দেখতে হয় তাসমিনার বাবাকেও। কিন্তু তিনিও কিছু করতে পারেন না। কারণ ঘোড়দৌড়ে অংশ নেওয়ার মতো একটা ঘোড়া কিনে দেবার সামর্থ্য যে তার নেই।

তারপরও মেয়ের সখ মেটাতে যেখানেই প্রতিযোগিতা হয়, সেখানেই নিয়ে যান মেয়েকে। মেয়ে তাসমিনা অন্য কারো ঘোড়া নিয়ে নামে প্রতিযোগিতায়, পুরুষ প্রতিযোগীদের পেছনে ফেলে বিজয় ছিনিয়ে আনে। তখন গর্বে বুক ভরে যায় পিতার, কিন্তু পুরস্কার দেওয়ার সময়েই কষ্টের পাথরটা চেপে বসে বুকের উপর। মেয়ের কষ্টের সুফল অন্যের হাতে চলে যাওয়া দেখে।

এমন দৃশ্য বারবার দেখেও খান্ত হয়নি ১১ বছরের মেয়ে তাসমিনা। সে ঘোড়দৌড়ে অংশ নিতেই থাকে, আরও অন্তত ৫ বছর সে এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে চায়। স্বপ্ন দেখে অন্যের ঘোড়া নয়, নিজের ঘোড়া নিয়েই প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার। সমাজের বাঁকা চোখকেও পাত্তা দিতে চায় না সে।

নওগাঁর মেয়ে তাসমিনা আজ তার এলাকায় পরিচিতি পেয়েছে ঘোড়াওয়ালি নামেই। এই নামেই সবাই তাকে চিনে। এই ঘোড়াওয়ালির জীবন যুদ্ধ নিয়েই ফরিদুর রহমান বানিয়েছেন স্বল্পদৈর্ঘ্য প্রামাণ্যচিত্র ‘অশ্বারোহী তাসমিনা’।

‘চলচ্চিত্রে সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য ও শিশুদের সহনশীলতা’ স্লোগান নিয়ে গ্রিসের অলিম্পাস পর্বতমালার পাদদেশে পিরগোস শহরে অনুষ্ঠিত হতে হচ্ছে অলিম্পিয়া ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল ফর চিলড্রেন অ্যান্ড ইয়ং পিপল। এই চলচ্চিত্র উৎসবে প্রামাণ্যচিত্র বিভাগে চূড়ান্ত প্রতিযোগিতার জন্য নির্বাচিত হয়েছে বাংলাদেশের স্বল্পদৈর্ঘ্য প্রামাণ্যচিত্র ‘অশ্বারোহী তাসমিনা’ (তাসমিনা : দ্য হর্স গার্ল)।

এর আগে গত মে মাসে জার্মানির মিউনিখে আয়োজিত ইন্টারন্যাশনাল চিল্ড্রেন ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন ফেস্টিভ্যালেও আমন্ত্রণ পেয়েছিল স্বল্পদৈর্ঘ্য প্রামাণ্যচিত্র ‘অশ্বারোহী তাসমিনা’। প্রিজনেস ইন্টারন্যাশনাল প্রতিযোগিতায়ও নির্বাচিত হয় ছবিটি।

শুধু তাই নয়, এর আগেও চারটি আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় শ্রেষ্ঠ প্রামাণ্যচিত্রের শিরোপা অর্জন করে এটি।

এসব অর্জন আসলে নওগাঁর কিশোরীটির অদম্য জীবন-সংগ্রামের কাহিনীর কারণেই সম্ভব হয়েছে। আর প্রামাণ্য চিত্রটি তাকে আজ পরিণত করেছে বিশ্ব তারকায়।

আপনার মন্তব্য