পরিবেশবান্ধব বিমান নির্মাণে সফল চট্টগ্রামের মেয়ে দেবযানী
December 3, 2016
Bangladeshism Desk (768 articles)
Share

পরিবেশবান্ধব বিমান নির্মাণে সফল চট্টগ্রামের মেয়ে দেবযানী

বিমান নির্মাণে সর্বাধুনিক প্রযুক্তির আবিষ্কার নিয়ে রীতিমত প্রতিযোগিতা চলছে। বিশেষ করে আমেরিকা, রাশিয়া, ফ্রান্স, জার্মান, ব্রিটেন এবং চীনের বিমান নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোতে পরস্পরকে টেক্কা দেওয়ার মনোভাব বিরাজ করছে।

তবে বেশিরভাগেরই লক্ষ্য থাকে যুদ্ধকৌশলে পারদর্শী, দ্রুতগতি সম্পন্ন, প্রতিপক্ষের রাডার ফাঁকি দেওয়া, ভারী অস্ত্র বহনে সক্ষমতার দিকে। কদিন পরপরই শোনা যায়, অমুক দেশ নতুন বিমান এনেছে, আবার তাকে টেক্কা দিতে দু’দিন পরেই অন্যদেশ নতুন প্রযুক্তির বিমান উড়ায়।

বিশ্বশক্তিগুলোর সর্বাধুনিক প্রযুক্তির বিমান নির্মাণের প্রতিযোগিতার পাশাপাশি যাত্রী বিমানের ব্যবহারও বাড়ছে। ফলে বিপুল সংখ্যক বিমান প্রতিনিয়ত জ্বালানি পুড়িয়ে নিঃসরণ করছে পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর কার্বন। যা বিপর্যয় ডেকে আনছে বিশ্বজলবায়ুর জন্য।

আর সে ভাবনা থেকেই পরিবেশবান্ধব বিমান নির্মাণের উপায় খুঁজছে নির্মাতারা। সে প্রচেষ্টার সাফল্য হিসেবে গত ২৯ সেপ্টেম্বর এইচওয়াই-৪ নামের পৃথিবীর প্রথম কার্বন নিঃসরণমুক্ত বিমান উড়ানো হয়েছে। যেটি চলে জ্বালানি কোষ ও ব্যাটারির সাহায্যে। এই বিমানের শব্দও কম।

জার্মানির স্টুটগার্ট বিমানবন্দরে এইচওয়াই-৪ নামের একটি চার আসনের যাত্রীবাহী বিমানের সফল উড়ানোর ঘটনার পেছনে যে কয়জন মানুষের অবদান আছে তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে আমাদের চট্টগ্রামের মেয়ে দেবযানী ঘোষ।

বাংলাদেশের গর্ব দেবযানী এইচওয়াই-৪ বিমান তৈরির একজন সফল ‘কারিগর’। প্রকল্পের বৈজ্ঞানিক নেতৃত্বে আছে জার্মান অ্যারোস্পেস সেন্টার (ডিএলআর)। প্রধান গবেষণা অংশীদার ইউনিভার্সিটি অব উলম।

জানা গেছে, ইউনিভার্সিটি অব উলমের গবেষণা দলে পিএইচডি গবেষক হিসেবে কাজ করছেন চট্টগ্রামের মেয়ে দেবযানী ঘোষ। দলনেতা ড. জোসেফ কাল্লোসহ এ দলে সদস্যসংখ্যা তিন। বিমান নির্মাণের অংশীদার হিসেবে আছে পিপিস্ট্রেল, এইচটুফ্লাই, হাইড্রোজেনিক্স।

দেবযানী জানিয়েছেন, এইচওয়াই-৪ হাইব্রিড বৈদ্যুতিক উড়োজাহাজ। জ্বালানি কোষ (ফুয়েল সেল) ও ব্যাটারি এই বিমানের প্রয়োজনীয় শক্তি সরবরাহ করে। ফুয়েল সেল সরাসরি হাইড্রোজেন এবং বাতাসের অক্সিজেন থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন করে। বৈদ্যুতিক মোটরের সাহায্যে এই বিদ্যুৎ দিয়ে বিমান চলে। তাই এটা পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর গ্যাস নিঃসরণ করবে না।

বাঙালিরা মেধা ও মননশীলতায় কখনো পিছিয়ে ছিল না, এদেশে অভাব শুধু সুযোগের। তাই যখনই কেউ উপযুক্ত পরিবেশ ও কাজের সুযোগ পান তখনই তারা দেখিয়ে দেন তাদের সক্ষমতা। চট্টগ্রামের মেয়ে দেবযানী ঘোষ সেটাই আবার প্রমাণ করে দেখালেন।

Latest Video Release

বাংলাদেশের টাইগারদের উৎসর্গ করে বাংলাদেশীজম প্রজেক্ট তৈরী করেছে একটি বিশেষ ভিডিও। নীচে ভিডিওটি দিয়ে দিলাম। দেখে ফেলুন

আপনার মন্তব্য