এিপুরা রাজ্যের মাঝামাঝি ভূমিকম্পে কেপে উঠেছে বাংলাদেশ


বাংলাদেশেরর সীমান্ত নিকটবর্তী ভারতের এিপুরা রাজ্যের  মাঝামাঝি ভূমিকম্পে কেপে উঠেছে বাংলাদেশের রাজধানী সহ বিস্তীর্ণ এলাকাসমূহ।বিশিষ্ট সূত্রে জানা এই ভূমিকম্পের উৎপত্তি ছিল ঢাকা থেকে ১৭০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্ব এবং আগরতলা থেকে ৭৬ কিলোমিটার পূর্বে।এিপুরার আসাম্বা এলাকায় ছিল ভূমিকম্পের মূল উৎত্তিস্থল।ভুপৃষ্ঠের ৩৬ কিলোমিটার গভীরে এর এর সন্ধান পাওয়া যায়।রিখটার স্কেল এ এর মাত্রা ছিল ৫ দশমিক ৫। ভূমিকম্পে খুব একটা বেশি ক্ষয় ক্ষতি না হলেও মৌলভীবাজার সহ দেশের কয়েকটি অঞ্চলে ভবন ও দেয়াল ধ্বস ও জমিন ফেটে পানি ও কাদা বালি বের হওয়ার খবর পাওয়া যায়। বিকালে অফিস ছুটির ২ ঘন্টা আগে রাজধানীর ভবনগুলোতে কম্পন অনূভত হলে সবাই অফিস ছেড়ে রাস্তায় নেমে আসেন।বিডি নিউজ ২৪ ডটকম প্রতিনিধিদের রিপোর্ট অনুসারপ পূর্ব ও দক্ষিণের সিলেট,কুমিল্লা,চট্টগ্রাম অঞ্চল ছাড়াও মধ্য ও উত্তরের অধিকাংশ জেলায় এই ভূমিকম্পের খবর পাওয়া যায়।এছাড়াও ত্রিপুরায় কোন ক্ষয়-ক্ষতির আভাস পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো। তবে এই ভূমিকম্পে জনমনে যথেষ্ঠ আতংক সৃষ্টি হয়েছে বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে উঠে এসেছে।মাত্র ৯ ঘন্টার ব্যবধানে ২ বার ভূমিকম্প হওয়াটা যথেষ্ঠ আতংকের কারণও বটে। কিন্তু কেন এই ভূমিকম্প? কেউ কেউ ব্যক্তিগতভাবে কোন বিশেষ উদযাপন যেমন নিউইয়ার/ক্রিসমাস… অথবা পোশাকের প্রভাবেও হতে পারে বলে মনে করেছেন। কিন্তু মানুষের বিভিন্ন কাজের প্রতিক্রীয়ায়(কয়লা পোড়ানো,তেল পোড়ানো ও পরিবেশ দূষণ ইত্যাদি) প্রকৃতি ও পরিবেশে যেসব পরিবর্তন হয়েছে বিশেষ করে বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্বির কারনেই এমনটা হয়েছে বলে মনে করেন ভূমিকম্প বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মন্তব্য
Previous চট্টগ্রামে বাংলাদেশীজমের অত্যাধুনিক ফিল্ম এবং ফটোগ্রাফি কোর্স
Next চট্টগ্রাম এবং কক্সবাজারের হোটেলগুলোর প্রমোশনের জন্য একটি বিশেষ পদক্ষেপ