সফল উদ্যোক্তা হবার পথে ৯টি পদক্ষেপ
January 4, 2017
Bangladeshism Desk (767 articles)
Share

সফল উদ্যোক্তা হবার পথে ৯টি পদক্ষেপ

একজন উদ্যোক্তা হিসেবে আপনিই আপনার সবচেয়ে বড় বন্ধু,আবার আপনিই আপনার সবচেয়ে বড় শত্রু।আপনার নিজের প্রতি বিশ্বাসের ক্ষমতা কতটুকু তার উপরেই নির্ভর করছে সফলতার প্রথম ধাপ।এছাড়াও আপনার নিজস্ব কিছু অভ্যাস আছে যা বর্জনের মাধ্যমেই পারেন সফলতাকে ছুয়ে ২০১৭ কে সেরা বছরগুলোর একটি করতে। আসুন জেনে নিই একজন সফল উদ্যোক্তা হিসেবে যাত্রা শুরুর আগে কোন বিষয়গুলো আপনার বর্জন করা উচিত।

১.নিজেকে সর্বদা উপযুক্ত মনে করুন: হ্যা, বিশেষ একটি তুষারকণার মতই আপনার মধ্যে অনেক দক্ষতা ও দূরদৃষ্টিতার সমন্বয় থাকতে পারে।তারমানে এই নয় যে বিশ্ব আপনার মূল্যায়নে বাধ্য থাকবে।বিশেষ করে একজন উদ্যোক্তা হিসেবে আপনার সাফল্য চান তাহলে আপনাকেই নিজের যোগ্যতা বিচার করতে হবে।যেমন একজন উদ্যোক্তা হিসেবে আপনার কোম্পানিরর জন্য প্রচারণা চান কিংবা নতুন ক্লায়েন্ট চান, তাহলে আর পিছিয়ে না থেকে এখুনি আত্নবিশ্বাসের সাথে কাজ আরম্ভ করে দিন।

২.সবকিছু একা করার চেষ্টা করবেন না: বলা হয়ে থাকে সবকিছু একা করার চেস্টা করবেন না। হ্যা আপনি কারো থেকে সাহায্য বা পরামর্শের জন্য উপদেশ নিতে পারেন। এমনকি আপনার কাধের বোঝা হালকা করার জন্য কিছু শ্রমিক বা কর্মী ও নিয়োগ দিতে পারেন।আপনাকে সাহায্য করতে পারলে খুশী হয় এমন বিশ্বাসযোগ্য বন্ধু কিংবা সহকারী উদ্যোক্তা ও পরিচিত নেটওয়ার্ক নিশ্চয় আছে যারা আপনার সাফল্যে আনন্দিত হবে কিংবা কোন একসময় আপনি যাদের সাহায্য করেছেন এমন কারো সাহায্য নিতে পারেন। কথায় আছে বাণিজ্য এমনিতে যথেষ্ট কঠিন কাজ, অপ্রয়োজনে আরো জটিল করার প্রয়োজন নেই।

৩.নিজেকে নিখুত করে তুলুন: সবাই কোন না কোন সময় ব্যর্থ হয়। একজন সফল ব্যক্তি যিনি ইতিমধ্যে সফলতার চূড়ায় পৌছে গেছেন, যাচাই করে দেখুন কতটাইনা বিপর্যস্ত পথ তাকে পার হতে হয়েছে। কোন মানুষই কখনও নিখূত হতে পারেনা। নিজেকে নিখূত করা ভুল থেকে দূরে সরিয়ে সাফল্য অর্জনের পথে যে শিক্ষা প্রয়োজন তা বাঁধাগ্রস্থ করে। কারণ ভুল থেকেই তো মানুষ শিক্ষা নেয়।

৪.নিজেকে অন্যদের সাথে তুলনা করুন: সফল মানুষ মানেই অনুপ্রেরণাযোগ্য। তাদের সফলতার যে পথচিত্র রয়েছে তার অনুকরণ নয়,অনুসরণ ই পারে আপনাকে তাদের মত সাফল্যের চূড়ায় পৌছে দিতে।আপনি দেখতে তাদের মত নন কিংবা তাদের মত একই গুণের সমষ্টি আপনার মাঝে নাও থাকতে পারে। তারা শুরু করেছিল কঠিন পরিশ্রম দিয়ে। তাই আপনার নিজের ভিতর লুকিয়ে থাকা গুনের সমষ্টি দিয়ে তাদের মত কঠিন পরিশ্রম দিয়ে শুরু করুন।

৫.গড়িমসি করা থেকে বিরত থাকুন: ব্যবসায়ের কিছু অংশ আপনার জন্য মজার নাও হতে পারে।আপনার হয়ত মেইলিং কিংবা ওয়েবসাইটিং ভাল নাও লাগতে পারে। কোন কোন ক্ষেত্রে আপনাকে মানুষের ভোগান্তিতেও পরতে হতে পারে। তাই বলে থেমে গেলে চলবেনা।প্রতিটি সাধারণ পদক্ষেপ ও আপনাকে গূরুত্বের সহিত পার হতে হবে।আপনার অবজ্ঞা যেন সাফল্যে পৌছানোর পথে কোন দূরত্ব সৃষ্টি না করে।

৬.অপ্রস্তুত থাকা চলবেনা: আপনার চলার পথে এমন কোন ক্লায়েন্ট বা তাদের কার্যকলাপ আপনাকে আক্রমন করতে পারে যা চলার পথে বাধাগ্রস্থ হতে পারে।এগুলো এড়িয়ে যাওয়াটাও সম্ভব হয়না। কোন বিষয় না আপনি আপনার কর্মচারীদের কতটা চিনেন। বরং প্রয়োজনের জন্য আপনি কিছু প্ল্যান করে রাখুন যা আপনাকে হঠাৎ বিপদ থেকে উদ্ধার করতে পারে হয়তো এসব পরিকল্পনা প্রণয়নের প্রয়োজন নাও হতে পারে তবুও প্রস্তুতি নিয়ে রাখা ভাল।

৭. ক্রমাগত অভিযোগ করার মানসিকতা থেকে বেরিয়ে আসুন: নেই শব্দটি সবসময় ক্লান্তিকর।যারা আপনার শুভাকাঙ্খী তারা সবসময় আপনার পাশে নাও থাকতে পারে।এই সকল সাধরণ সমস্যায় থেমে গেলে হবেনা।আপনাকে ‘না’ থেকেই সমাধান বের করে সামনে এগিয়ে যেতে হবে।

৮.অপ্রয়োজনীয় ব্যায় বন্ধ করা উচিত: অপ্রয়োজনীয় ব্যায় থেকে দূরে না থাকলে আপনার সাফল্যে পৌছানো এখানেই বন্ধ হয়ে যাবে।একটি নতুন কম্পিউটার কেনা অনেক উত্তেজনাপূর্ণ ও মজার হতে পারে।কিন্তু গুগল এনালিটিক্স এর উপর কোর্স আপনাকে অনেক কিছুই শিখাতে পারে যা আপনার দুঃসময়ের সম্বল হতে পারে।

৯:নিজেকে অযোগ্য ভাবা ছেড়ে দিন: কোন কাজ শুরুর আগে কেউ কখনও প্রস্তুত থাকেনা।আপনাকে শুধু আপনার উপযুক্ত লক্ষ্য স্থির করতে হবে।তারমানে এই নয় যে সবকিছুতেই জ্ঞানের ভাণ্ডার থাকা লাগবে।শুধু এটাই মনে রাখতে হবে সবকিছুর জন্য সঠিক সময়ের অপেক্ষা না করে যা করতে চান তা এখুনি শুরু করুন।

এমন অনেকগুলো ব্যাপার আছে যা আপনার বদঅভ্যাসে পড়ে।কিছুতেই অভ্যাসগুলোকে প্রশ্রয় দেয়া যাবেনা।এই সকল বাজে অভ্যাসগুলোকে বর্জন করে ২০১৭ কে আপনার স্বপ্ন বাস্তবায়নের বছর হিসেবে ভেবে নিয়ে এখুনি নিজেকে তৈরি করে নিন।

আপনার মন্তব্য