২০১৬ সালের সেরা ৫টি DSLR ক্যামেরা

62
SHARE

ফটোগ্রাফি এখন অনেকেরই শখ এবং পেশা আবার অনেকেই এই শখে বা পেশায় নামার চিন্তা ভাবনা করছেন। আর সবার আগেই চলে আসে ক্যামেরার কথা। সবারই একই চিন্তা, কোন ক্যামেরাটা কেনা যায়? কোন ক্যামেরাটা দিয়ে ভালভাবে কাজ করা যাবে। যদিও সৃষ্টিশীল এধরনের কাজে ক্যামেরার পেছনের মানুষটার উপর বেশীরভাগ নির্ভর করে কিন্তু উপযুক্ত ইকুইপমেন্ট ছাড়া প্রফেশনাল কাজ করা যায় না। আমাদের ইনবক্সে আর ইউটিউবে ফটোগ্রাফি টিউটোরিয়ালগুলোর কমেন্টেও অনেকেই জিজ্ঞেস করেন কোন ক্যামেরাটা নিবেন। তাই আমরা সেরা ২০১৬ সালের ৫ টি ক্যামেরার একটি লিস্ট বানালাম যেটা হয়তো কাজে আসবে অনেকেরই। এগুলো অনেকটা আমার ব্যাক্তিগত পছন্দ। এসব ক্যামেরার কিছু নিজেই ব্যবহার করেছি বা অন্যদের অন্তত করতে দেখেছি অ্যান্ড আদের পারফরম্যান্স সম্পর্কেও কিছু জানা আছে আর অনলাইনে নানা ওয়েবসাইটগুলোতে রিভিউর আলোকে এই লিস্টটি বানিয়েছি।

 

১। Canon EOS 5D Mark IV

গত বছর এই ক্যামেরাটা বেশ ভাল সাড়া ফেলেছিল যখন বের হয়েছিল। ফুল ফ্রেমের এই ক্যামেরাটির পারফরম্যান্স অসাধারন এবং আমাদের এক নম্বর পছন্দ ফটোগ্রাফি এবং এমনকি ভিডিও করার ক্ষেত্রেও। এই ক্যামেরার অতোম্যাটিক ফোকাসিং সিস্টেমটি অসাধারন। আর আছে ফোর-কে রেজ্যুলেশনে ভিডিও করার ফিচার যা এখন অনেকটাই অতি জরুরী একটি ব্যাপার হয়ে গেছে বিশেষ করে যারা ভিদিওগ্রাফি পছন্দ করেন। 61-Point অটোফোকাস এই ক্যামেরাকে অনেক বেশী এডভান্সড করে ফেলে আর বিল্ট কোয়ালিটিও অসাধারন। প্রফেশনাল ফটোগ্রাফি এবং সেমি-প্রফেশনাল ভিডিওগ্রাফি – দুটো একসাথেই যারা করতে চান, তাদের জন্য এই ক্যামেরাটি।

Specification:

Sensor: Full-frame CMOS | Megapixels: 30.4MP | Autofocus: 61-point AF, 41 cross-type | Screen type: 3.2-inch touchscreen, 1,620,000 dots | Maximum continuous shooting speed: 7fps | Movies: 4K | User level: Expert

 

২। Nikon D810

শুধুমাত্র ফটোগ্রাফির জন্য আমার বরাবরই নিকন এর ক্যামেরা পছন্দ। আর নিকনের সেরা ক্যামেরাগুলোর একটা হলো এই D810। এটিও একটি ফুল ফ্রেম ক্যামেরা। ৩৬.৩ মেগাপিক্সেলের এই ক্যামেরাটি একটু পুরোনো মডেলের হলেও এখনও এটি বেশ উল্লেখযোগ্য একটি ক্যামেরা কিন্তু 5D এর মত দামী না। প্রফেশনাল ক্যামেরা হিসেবে এটি আসলে অনেক সস্তাই বলা চলে। যদি আপনার খেলাধুলা, ওয়াল্ডলাওফ ফটোগ্রাফি, একশন – এধরনের ফটোগ্রাফি পছন্দ হয়ে থাকে, তাহলে এই ক্যামেরা ছাড়া আপনার গতি নেই। অসাধারন ছবির কোয়ালিটি এই ক্যামেরার অন্যতম বৈশিষ্ট্য। তবে যাদের ফটোগ্রাফির পাশাপাশি ভিডিওগ্রাফি করারও ইচ্ছা আছে, তাদের জন্য এই ক্যামেরা না।

Specification:

Sensor: Full-frame CMOS | Megapixels: 36.3MP | Autofocus: 51-point AF, 15 cross-type | Screen type: 3.2-inch, 1,229,000 dots | Maximum continuous shooting speed: 5fps | Movies: 1080p | User level: Expert

 

৩। Canon EOS 5DS

৫০.৬ মেগাপিক্সেলের এই ক্যামেরাটী এই মুহুর্তে সর্বোচ্চ রেজুলেশনের ক্যামেরা বলা যায় এবং এটি একটি ফুল-ফ্রেম ক্যামেরা। এই ক্যামেরাকে ইদানীং ফুল ফ্রেম ক্যামেরার স্ট্যান্ডার্ড বা আদর্শ ধরা হচ্ছে কিন্তু এটাকে একেবারে ১০০ ভাগ পারফেক্ট বলা যাবে না। এই ক্যামেরাতে নেই কোন Wi-fi ফাংশন বা ফোর-কে ভিডিও রেকর্ডিং আর বিশাল সাইজের ছবির জন্য দরকার অনেক বড় মেমোরী কার্ড এবং ভাল মানের মেমরী কার্ড। তাছাড়া এত বড় আকারের ছবিগুলো প্রসেস করার জন্য আরো দরকার খুব ভাল মানের কম্পিউটার। তাই এই ক্যামেরাটা কেনার সময় সবাই ২য় বার ভাবে কারণ খরচ বেড়ে যায়। তবে খরচ যাই বাড়ুক না কেন, ইমেজ কোয়ালিটি যদি একজন ফটোগ্রাফারের সবকিছু হয়, তাহলে সবকিছুকে মাফ করা যায়। এই ক্যামেরার রয়েছে অসাধারন ডাইনামিক রেঞ্জ অর্থাৎ সাদা এবং কালোর ক্ষেত্রে এই ক্যামেরা অনেক বেশী ডিটেইল ধারন করতে পারে যা অন্যান্য ক্যামেরা করতে পারেনা।

Specification: Sensor: Full-frame CMOS | Megapixels: 50.6MP | Autofocus: 61-point AF, 41 cross-type | Screen type: 3.2-inch, 1,040,000 dots | Maximum continuous shooting speed: 5fps | Movies: 1080p | User level: Expert

৪। Nikon D-500 

 

আমার ব্যাক্তিগত পছন্দের একটি ক্যামেরা এই ডি-৫০০। এই ক্যামেরাটাতে একটি প্রফেশোনাল ক্যমেরার সমস্ত ফিচারই রয়েছে কিন্তু আকার হয়েছে ছোট এবং একটু হালকা আর ঠিক সেই কারনেই এটি আমার পছন্দের তালিকায় রয়েছে ফটোগ্রাফির জন্য। ছোট হলেও এই ক্যামেরাটির বিল্ট কোয়ালিটি অসাধারন। এই ক্যামেরাটি ২০.৯ মেগাপিক্সেলের এবং এটির রয়েছে APS-C সেন্সর যা ফুল ফ্রেম থেকে একটু ছোট। এই ক্যামেরার রয়েছে 153-Point অটোফোকাস সিস্টেম যা এক কথায় অসাধারন এবং এই মুহুর্তে বিশ্বের সেরা অটোফোকাস সিস্টেম। যেকোন ধরনের ফটোগ্রাফির জন্য এই ক্যামেরাটি বেশ ভাল একটি পছন্দ। তবে, ভিডিওর জন্য না।

Specification:

Sensor: APS-C CMOS | Megapixels: 20.9MP | Autofocus: 153-point AF, 99 cross-type | Screen type: 3.2-inch tilt-angle touchscreen, 2,359,000 dots | Maximum continuous shooting speed: 10fps | Movies: 4K | User level: Expert

৫। Canon EOS 7D Mark II

 

এই ক্যামেরাটি আমি অনেকদিন ধরেই ব্যবহার করছি। এর আগের ভার্সনও ব্যবহার করেছি অনেকদিন। ডিউরেবিলিটি বা বিল্ড কোয়ালিটির দিক থেকে এই ক্যামেরার কোন কম্পিটিটর নেই। এই ক্যামেরাকে পুরোপুরি প্রফেশনাল ক্যামেরা বলা যায় না তবে সেই তুলনায় প্রায় সব ধরনের এডভান্সড ফিচারই আছে এই ক্যামেরায়। স্পোর্টস বা একশন ফটোগ্রাফির জন্য এই ক্যামেরাটা বেশ পপুলার আর দাম কম হবার কারনে সাধারন ব্যবহারকারীদের কাছে এটি খুবই পছন্দের। এই ক্যামেরাটি ওয়েদারপ্রফ অর্থাৎ যেকোন ধরনের আবহাওয়াতে এটি কাজ করতে সক্ষম। এটির সেন্সর ফুল ফ্রেম না কিন্তু এতে আছে ডুয়েল পিক্সেল হাইব্রিড অটোফোকাস সিস্টেম।

Specification:

Sensor: APS-C CMOS | Megapixels: 20.2MP | Autofocus: 65-point AF, 65 cross-type | Screen type: 3.0-inch, 1,040,000 dots | Maximum continuous shooting speed: 10fps | Movies: 1080p | User level: Expert

ফটোগ্রাফি নিয়ে আমাদের বিশাল বাংলা ফটোগ্রাফি টিউটোরিয়াল সিরিজের ভিডিওগুলো দেখার জন্য চলে যান আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে আর সাবস্ক্রাইব করে রাখুন নিয়মিত আপডেট পাওয়ার জন্য! লিংক – YouTube.com/Bangladeshism

আপনার মন্তব্য