কারেন্ট ইস্যু

দেশের জন্য নতুন নতুন রেকর্ড বয়ে আনছেন কিছু মানুষ । প্রসংগ – মালিন্দো এয়ারের ফ্লাইটে এক মানুষের কান্ড!


খবরটি সম্ভবত এতক্ষনে আপনার স্ক্রিনে পৌছে গেছে। বিবিসির মত অনলাইন পত্রিকায় শোভা পাচ্ছে। মালেশিয়ার টিভি চ্যানেলে ফলাও করে প্রচার হচ্ছে। ইন্টারনেটে ইতিমধ্যে ভাইরাল হয়ে গেছে। কিছু ভারতীয় এবং পাকিস্তানী ফেসবুক পেজ এবং অনলাইন পত্রিকা চরম হারে ট্রোল করা শুরু করেছে ইতিমধ্যে। ইনবক্সে আবার অনেকেই এসব নিউজেরে লিঙ্কও পাঠাচ্ছে। 

উড়ন্ত বিমানে ‘উলঙ্গ হয়ে পাগলামির’ অভিযোগ: বাংলাদেশী যুবক পুলিশের হাতে”

উপরের এই খবরটি এই মুহুর্তে বাংলাদেশের ইন্টারনেটের লজ্জার সেনশেসন। যারা জানেন না ঘটনাটি, তা হলো 

শনিবার মালিন্দো এয়ারের ওডি ১৬২ নম্বর ফ্লাইটের উড়োজাহাজটি কুয়ালালামপুর থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ওড়ার পর অস্বাভাবিক আচরণ করতে শুরু করেন ওই যুবক।

মালয়েশিয়ার গণমাধ্যমেও এই খবরটি প্রকাশিত হয়েছে। তরুণটি বিমানের ভেতর একটি সিটে নগ্ন অবস্থায় বসে আছেন – এমন একটি ছবিও প্রকাশিত হয়েছে কয়েকটি পত্রিকায়।

স্ট্রেইট টাইমস সহ মালয়েশিয়ার বিভিন্ন সংবাদপত্রে বিমানের ভেতর তার নানা কান্ডের খবর বেরিয়েছে। এসব রিপোর্টে বলা হয়, ১০ হাজার ফিট উচ্চতায় ওড়ার সময় যুবকটি কাপড় খুলে উলঙ্গ হয়ে পর্নোগ্রাফি দেখতে শুরু করেন। তিনি নারী ক্রুদের জড়িয়ে ধরারও চেষ্টা করেন।

Image result for malindo air bangladesh guy naked

এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ তাকে বিমানের মধ্যে আটকে রাখে এবং বিমানটি ঢাকায় নামার পর তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। [বিবিসি]

এখন, আমার প্রশ্ন হলো, এই লজ্জা আমরা রাখি কোথায়? সেদিন ২৪ বছর বয়স্ক একটি মাদ্রাসা ছাত্র হামলা করল প্রফেসস জাফর ইকাবাল সাহেবের উপর। আজ আবার এই যুবক যে সম্ভবত মালেশিয়াতে উচ্চ শিক্ষা গ্রহন করছে, তার এই ন্যাক্কারজনক কান্ড। দিন দিন আমরা নতুন নতুন রেকর্ড করছি লজ্জায় পড়ার জন্য। এখন হয়তো তার মানসিক কোন সমস্যা আছে, কিন্তু কোন ধরনের মানসিক সমস্যায় একজন মানুষ কাপড় খুলে পর্ণোগ্রাফি দেখতে পারে? এদের মত আস্ত কুলাঙ্গা গুলোর জন্য পুরো বাংলাদেশীদের “পারভার্ট” , “লোফার” ইত্যাদি নাম দেয়া শুরু করেছে ঠিক যেমনটা আমরা ভারতের বেলায় করেছিলাম। এদের বাবা-মা বা পরিবার কি এদের শিক্ষা দেয়নি? হাতে গোনা গুটিকয়েক মানুষকের জন্য দুনিয়াতে আমরা আর কত অপমানিত হব? 

তবে মনে হয় এখানেই শেষ না। এই ছেলে যদি মানসিক বিকারগ্রস্ত হয়ে থাকে, তবে এই বিকারতা আমাদের সমাজের প্রতিটি স্তরেই বিদ্যমান। কেউ সামনে করে কেউ বা পেছনে। দেশে এখনও ৪ – ৫ বছরের একটি বাচ্চা মেয়ের ধর্ষন হয় কিন্তু তেমন কোন বিচার হয় না। যে যুবক বিমানে এমন কান্ড ঘটালো, কেউ কি গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারবে সে ভবিষ্যতে একজন ধর্ষক হবে না অথবা অতীতে ধর্ষন করেনি? হয়তো করেছে, শুধু খবর বের হয়নি। বলছিনা সে কিছু করেছে কিন্তু যা করেছে তা কি তার অতীত এবং ভবিষ্যতকে দেখাচ্ছে না? 

বাংলাদেশের তরুন সমাজের আসলেই আর মান-স্মমান থাকছেনা। এমনিতেই বাংলাদেশী পাসপোর্ট নিয়ে কোথাও গেলে অনেক বাকা চোখ দেখতে হয়। এখন তো প্লেনে উঠলেই মনে হয় আরো বিব্রত হতে হবে প্রতিবার। আর কত লজ্জা বয়ে আনবে তারা দেশের জন্য। যা আছে তা কি যথেষ্ট না? 

 

 

 


Independent Film Maker, Founder of Bangladeshism Project & Creator of Footprint.Press

View Comments
There are currently no comments.