in

আবুধাবি কেন এত ধনী?

সংযুক্ত আরব আমিরাতের উচ্চভিলাষের প্রতীক এর রাজধানী আবু ধাবি। আরব আমিরাতের খনিজ তেলের সিংহ ভাগ আবুধাবিতেই পাওয়া যায়। ফলে এটি সাতটি আমিরাতের মধ্যে সবচেয়ে ধনী ও শক্তিশালী। অতীতে আবু ধাবি ছিল সমুদ্র উপকুলবর্তী একটি দরিদ্র জনবসতি। ১৯৫০ এর দশকে আবুধাবি তার মাটির নিচে খুঁজে পায় বহু মূল্যবান সম্পদ খনিজ তেল। আবু ধাবির অসাধারণ প্রবৃদ্ধির মূল চালিকা শক্তি এই খনিজ তেল শিল্প। মাত্র ৪০ বছরে এই শিল্প দেশটি কোথা থেকে কোথায় নিয়ে গেছে সে সম্পর্কে জানব আজকে।
আরবি ভাষায় আবু ধাবি অর্থ হরিণের পিতা। আরব আমিরাতের সাতটি রাজ্যের মধ্যে আবুধাবি আয়তনে সবচেয়ে বড়। অতীতে আবুধাবি ছিল সমুদ্র উপকূলীয় একটি দরিদ্র জনবসতি। আরব আমিরাতের সবচেয়ে পুরোনো সভ্যতার নিদর্শন হলো হাফিত গ্রেভ। মৌমাছির চাকের মত দেখতে এই ছোট ছোট গম্বুজ নির্মাণ করা হয় খ্রীষ্ট পূর্ব প্রায় ৩ হাজার ২ শত বছর আগে। আর বর্তমানে তারা তৈরি করেছে অসাধারণ চমকপ্রদ সব ভবন। আধুনিক আবুধাবিতে পুরোনো বলতে কিছু নেই। আমিরাতের ৭ টি শহরের মধ্যে সবচেয়ে বড় আবুধাবি। ১২০০ কিলোমিটার আয়তনের শহরটিতে বাস প্রায় সাড়ে ১১ লাখ মানুষের। ১৯৬০ এর দশকে যা ছিল মাত্র কয়েক হাজার! কালের পরিক্রমায় আবুধাবি এখন পৃথীবির বিলাসবহুল শহরগুলোর মধ্যে একটি। অথচ মাত্র ১০০ বছর আগেও আবুধাবির চিত্র ছিল ভিন্ন। মরুর দেশটি তার ভাগ্য পরিবর্তনের জাদুর কাঠি খুঁজে পায় সাগরের বুকে। আবু ধাবি তার ভাগ্য পরিবর্তনের প্রথম অবলম্বন খুজে পায় সাগরের বুকে। ১৯ শতকের শুরুতে আবু ধাবির সমুদ্র সীমায় পৃথিবীর সবচেয়ে উজ্জল মুক্তা পাওয়া যেত। তখনকার সময়ে মুক্তোই ছিল অর্থনীতির মূল শক্তি। তবে এই বাণিজ্য খুব বেশি সময় ধরে রাখতে পারেনি আবুধাবি। প্রযুক্তির মারপ্যাচে পড়ে বন্ধ করতে হয়েছে দুনিয়ার সবচেয়ে উজ্জ্বলতম মুক্তোর ব্যাবসা। জাপানিরা উন্নত মানের কৃত্রিম মুক্তা তৈরির পদ্ধতি আবিষ্কার করলে আবু ধাবির মুক্তার অর্থনীতি ব্যাপক হ্রাস পায়। তবে ১৯৫০ দশকের শেষের দিকে আবু ধাবি সাগরে পাওয়া মুক্তোর চেয়েও অনেক দামী জিনিসের সন্ধ্যান পায় মাটির নীচে। খুঁজে পায় মহামূল্যবান খনিজ তেল। আবুধাবির মূল চালিকাশক্তি এখন এই খনিজ তেল।
মরুময় দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত। এর উত্তরে পারস্য উপসাগর, দক্ষিণ ও পশ্চিমে সৌদি আরব, এবং পূর্বে ওমান ও ওমান উপসাগর। পেট্রোলিয়াম আবিষ্কারের আগ পর্যন্ত ১৯৫০-এর দশকে সংযুক্ত আরব আমিরাত মূলত ব্রিটিশ সরকারের অধীন কতগুলি অনুন্নত এলাকার সমষ্টি ছিল। এগুলির দ্রুত উন্নতি ও আধুনিকায়ন ঘটে খনিজ তেল শিল্পের বিকাশের সাথে সাথে, ফলে আমিরাতগুলি ব্রিটিশ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে আসতে সক্ষম হয় ১৯৭০-এর দশকের শুরুতে। দেশের খনিজ তেলের বেশির ভাগ আবু ধাবিতে পাওয়া যায়, ফলে এটি সাতটি আমিরাতের মধ্যে সবচেয়ে ধনী ও শক্তিশালী। এখানকার অর্থনীতি স্থিতিশীল এবং জীবনযাত্রার মান বিশ্বের সর্বোচ্চগুলির একটি তেল শিল্পের কারণে। অসংখ্য দৃষ্টিনন্দন ও গগণচুম্বী ভবন আরব আমিরাতে রয়েছে। খুব কম সময়ে আরব আমিরাত বিশ্বের অন্যতম সুন্দর রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে স্বাধীনতার পর।
আরব আমিরাতের আরো একটি শহর দুবাই। আমাদের অনেকরই ধারণা দুবাই একটি দেশ। কিন্তু দুবাই সংযুক্ত আরব আমিরাতের একটি শহর। রাজধানী আবুধাবি। সংযুক্ত আরব আমিরাতের রয়েছে ৭টি এমিরেটস। যার মধ্যে দুবাই খুব জনবহুল এমিরেট। দুবাই শহবে কোন অপরাদ সংঘঠিত হয় না বললে ভুল হবে না। এ জন্য দুবাই শহর পৃথিবীর অন্যতম নিরাপদ শহর হিসেবে বিবেচিত করা হয়। তা ছাড়া দুবাইয়ের আইন কানুনও খুব কঠিন। ইসলামি আইনের অনেক আইন বাস্তবায়িত আছে এই দুবাইয়ে।

What do you think?

Written by Md Meheraj

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading…

0

Comments

0 comments

ক্রাকাতোয়া দ্যা ভলকানিক আইল্যান্ড

ভারতের সেরা স্থাপত্য