in

একটি প্লাস্টিক বিপ্লব!

বিগত অর্ধ-শতকে সারা পৃথিবী জূড়ে প্রচুর প্লাস্টিক পন্য বিস্ফোরিত হয়েছে । প্রকৃতপক্ষে , প্রতি মিনিটে এক ট্রাক করে প্লাস্টিক বর্জ্য আমাদের পরিবেশের সাথে মিশে যাচ্ছে , যা সারা পৃথিবীর সমুদ্র ও স্থলজ সব প্রানীদের হুমকির সম্মুখীন করেছে ।
বৈশ্বিক প্লাস্টিক ব্যাবসায়ে বিধিনিয়ম ও স্বচ্ছতার মাধ্যমে আরো ঊন্নতি সাধনের লক্ষ্যে জাতিসংঘের সাথে ১৮৭টি দেশ চুক্তিতে আবদ্ধ্ব হয়েছে । কিন্তু প্লাস্টীক দূষন সমাধানের ক্ষেত্রে দেশগুলি শুধু মাত্র একটি ক্ষুদ্র অংশ । বাড়তে থাকা এই সমস্যাটি কোনও সরকার একা দমন করতে পারবেনা । এর সমাধানের জন্য প্রতিটি দেশ ,শহর , কোম্পানি এবং প্রতিটি মানুষ মীলে এড় মঢয়ে প্লাস্টীক মূক্ত প্রকৃতি গড়ে তোলার লক্ষ্যে এগিয়ে যেতে হবে ।
বর্তমানে , কোম্পাণী গুলো শুধুমাত্র তাদের প্লাস্টিক দূষনের চিহ্ন কমিয়ে ফেলাই নয় বরং সরকার ও ভোক্তাদের সাথে যুক্ত হয়ে প্লাস্টিকের সুষ্ঠূ ব্যাবহার ,পুনহব্যাবহার এবং এটী পুরোপুরি নিস্তেজ করার বিষয়ে কাজ করে একটা বিশাল পরিবর্তন নিয়ে আসতে সক্ষম । প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়ে এবং যোগাণ শৃংখল কয়ে আরো আকর্ষনীয় করে পন্যের নেতিবাচক প্রভাব হ্রাস করার সাথে সাথে বাজারজাতকৃত প্লাস্টিকের পুনহব্যাবহার করে পুণরায় প্রাপ্তির নিশ্চয়তা দিতে পারে ।
এই পরিবর্তনের পথে কোম্পাণীগূলোকে সাহায্য করার জন্য ওয়ার্ল্ড ওয়াইল্ডলাইফ ফান্ড রিসোর্স প্লাস্টীক নামে একটি প্রোগ্রাম চালু হয়েছে । কোম্পাণীগুলো প্লাস্টিক দূষণ থেকে রেহাই পেতে প্রতিশ্রুতিব্ধ হয়েছে কিন্তু তারা জানেনা কিভাবে সেই প্রতিশ্রুতি গুলো পূরন করা যাবে । রিসোর্স ঃ প্লাস্টিক সেইসব কোম্পাণীগূলোড় জন্য একটি ঊন্নত পরামর্শক ।
২০৩০ সালের মধ্যে ১০ মিলিয়ন মেট্রিক টণ প্লাস্টিক বর্জ্য প্রকৃতিতে মিশে যাওয়া ঠেকে প্রতিরোধ করার লক্ষ্য নিয়ে ন্যুনতম ১০০টি কোম্পাণীকে সাথে নিয়ে আমাদেরকে সেই সম্ভাবনার দিকে নিয়ে যাবে । এই ক্ষেত্রগুলা এবং যোগান শৃঙ্খল গুলোকে এ কাজ সঠিক উৎসাহ দিতে পারলে কাংক্ষিত ফলাফল লক্ষ্যমাত্রার তিনগুন অর্জিত হতে পারে ।
মাত্র ১০০ টি কোম্পাণী পারে ১০ মিলিয়ন বর্জ্যকে প্রতিরোধ করতে । তাদের মধ্যে একজন হোউ । প্রকৃতি আমাদের শিখিয়েছে পরিবর্তনই হলো অস্তিত্ব রক্ষার একমাত্র চাবিকাঠি । যে প্রাকৃতিক পরিবেশের উপর আমরা নির্ভর করছি তাকে হুমকির সম্মুখিন করছে প্লাস্টীক দূষণ , তাই ২০১৯ কে পরিবর্তন করা অবশ্যম্ভাবী । এ ঊদ্দেশে WWF (WORLD WILDLIFE FUND ) প্লাস্টিক এর উৎস , এর ব্যাবহার এবং পুরোপুরি ধ্বংস করা নিয়ে পৃথিবীকে পুনঃনির্মাণের জন্য সারা পৃথিবী জূড়ে ব্যাবসায়ে অংশীদার হয়েছে ,
আসুন প্লাস্টীক , পলীব্যাগ জাতীয় পন্য আমরা বর্জ্যন করি , দূষনমূক্ত পৃথিবী গড়ি ।

What do you think?

Written by Raihan Yasir

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading…

0

Comments

0 comments

অনাহার নিরসন লক্ষ্য ২০৩০ সাল

প্রাচীন গ্রীকরা কীভাবে পার্থেননকে ইমপ্রেশন-এবং শেষ পর্যন্ত ডিজাইন করেছিলেন