in

স্বাদের খাবার

পৃথিবীর প্রাচীনতম ইতিহাস আমরা জানতে পেরেছি প্রত্নতত্ববিদদের মাধ্যমে। তারা মাটি খুড়ে বের করে এনেছেন আদিম যুগের মানুষের জীবন যাপন, অতীত জীবনের নিদর্শন। আর এই সকল কিছুর উপর ভিত্তি করেই গড়ে উঠেছে আমাদের ইতিহাস। এই সমস্ত কিছুই আমাদের ভীষণ ভাবে অবাক করে। হাজার হাজার বছর ধরে মাটির নীচে থাকার পরও এরা ইতিহাসের সাক্ষী। এই নিদর্শন গুলো প্রত্নতত্ববিদদেরও অবাক করে দিয়েছে। প্রাচীন যন্ত্রপাতি, ছবি, লিপি, যুদ্ধাস্ত্র, মূর্তি, মুদ্রা ইত্যাদি এই সব নিদর্শনের কথা আমরা সবাই জানি। আজ আমি আপনাদের জানাবো প্রাচীনতম কিছু খাবারের কথা।

Cheese: চীজ এমন একটি খাবার যা পুরনো হওয়ার সাথে সাথে আরও বেশি সুস্বাদু হয়। কিন্তু প্রায় ৩ হাজার বছরের পুরনো চীজ খাওয়া কি উচিত। ২০১৮ সালে এক উচ্চ পদস্থ মিশরীয় প্রাচীন কবর থেকে প্রত্নতত্ববিদরা এক অজানা পদার্থ আবিষ্কার করে। বিজ্ঞানীদের ধারনা এটি একটি খাবার এবং যার বয়স প্রায় ৩ হাজার ২ শত বছর। প্রথমে প্রত্নতত্ববিদরা অনিশ্চিত ছিলেন খাবারটির সম্পর্কে। তারা বুজতে পারেননি কি ধরনের খাবার তারা আবিষ্কার করেছেন। এবং এখন পর্যন্ত প্রাচীন মিশরীয়দের চীজ বানানোর কোন খোঁজ পাওয়া যায় নি। কিন্তু ঐ খাবারটির পরীক্ষা করা হয়। যা থেকে প্রমাণিত হয় যে ঐটি চীজ। যা সম্ভবত ভেড়া বা ছাগলের দুধ থেকে তৈরি হয়েছিল। বিজ্ঞানীরা আরও জানিয়েছেন যে ঐ খাবারটিতে তারা একটি ছয়াছয়ে রোগের জীবাণুর সন্ধান পেয়েছেন।

Fruit Cake: আমরা প্রায় সময় ফ্রিজে খাবার রেখে, সেই খাবারের কথা ভুলে যাই। কিন্তু কিছুদিন পর যখন খাবারটির কথা মনে পড়ে, ততদিনে খাবারটির গন্ধ বা আকার বা স্বাদ প্রায় সবকিছুই পরিবর্তন হয়ে যায়। কিছু মানুষ একবার একটি ফ্রুট কেকের প্যাকেট আন্টারটিকায় ফেলে আসেন। বহু বছর ধরে খাবারটি সেখানেই পড়ে থাকে। ২০১৭ সালে একদল গবেষক সেখানে একটি কুড়ে ঘরে কেকটি আবিষ্কার করেন। কিন্তু তারা দেখেন এত বছর হয়ে যাওয়া সত্ত্বেও কেকটির কোন পরিবর্তন ঘটেনি। কেকটি ছিল প্রায় ১০০ বছরের পুরনো। তাই বিজ্ঞানীরা কেকটি মুখে দিয়ে স্বাদ নেওয়ার চেষ্টা করেনি। কারন কেকেটি দেখতে ঠিক থাকলেও খুবই দুর্গন্ধ যুক্ত ছিল।

Chocolate: পৃথিবীতে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে পুরনো যে চকলেট বারটি পাওয়া গেছে, তা পাওয়ার এক মাত্র কারন হচ্ছে ঐ চকলেট বারটির মালিক ছিলেন একজন স্বাস্থ্য সচেতন মানুষ। ঐ চকলেট বার গুলো প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় আসে। এবং সেগুলো ব্রিটিশ আর্মিদের দেওয়া হয়। সৈনিক রিচারড বুলিমুর মিষ্টি খাওয়া একে বারেই পছন্দ করতেন না। এমনকি তিনি ধূমপান বিরোধী ছিলেন। তাই তার চকলেট এবং সিগারেটের বক্স গুলো এখনও ভর্তি। এই খাবার গুলোও প্রায় ১০০ বছরের পুরনো।

Soup: বলা হয়ে থাকে সুপ রান্না করে যদি কয়েকদিন রেখে দেওয়া যায়, তাহলে এর স্বাদ আরও বেরে যায়। চাইনিজরা এই সুপ প্রায় ২ হাজার বছর ধরে জমিয়ে রেখেছিল। ২০১০ সালে প্রত্নতত্ববিদরা এই সুপ একটি পাত্রে আবিষ্কার করে। এটি পাওয়া যায় একটি কবরে। এই সুপটি তৈরি হওয়ার প্রায় ২ হাজার ৪ শত বছর পর এই সুপ আবিষ্কার করা হয়। এই সুপ এখনও তরল অবস্থাতেই আছে। যদিও আজ আর এটিকে দেখে সুপ বলে মনে হয় না। এই সুপটি এখন সবুজ রং ধারন করেছে। এই সুপে খারের সন্ধানও পাওয়া গেছে।

Butter: প্রায় ৩ হাজার বছর আগে আয়ারল্যান্ডে মাখন সংরক্ষণ করে রাখার ব্যবস্থা ছিল না। সেই সময় মাখন তৈরির তুলনায় তার ব্যবহার কম ছিল, তাই অধিবাসীরা মাখন ঠিক ভাবে সংরক্ষণ করতেন না। কিন্তু প্রত্নতত্ববিদরা সেই এলাকায় কিছু মাখন আবিষ্কার করে। হয়তো সেই এলাকার মানুষরা এইগুলো জমা করে ভুলে গিয়েছিল। কারন ২০০৯ সাল পর্যন্ত মাখন গুলো ঐ অবস্থাতেই ঐ খানে পড়ে ছিল। যদিও এত বছর পরে মাখনের ক্রিম পদার্থটি নষ্ট হয়ে গেছে। এবং সেটি সাদা জাতীয় মোম জাতীয় পদার্থে পরিণত হয়েছে। বিজ্ঞানীরা কেউ এই মাখন খেয়ে দেখেন নি, তাই এর স্বাদ কি এখনও সবার কাছে অজানা।

What do you think?

Written by MD BILLAL HOSSAIN

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading…

0

Comments

0 comments

ভয়ংকর সেতুগুলো আপনাকে অবাক হতে বাধ্য করবে।

মৃত সাগর এবং অন্যান্য সাগরের মধ্যে পার্থক্য