in

স্বাদের খাবার পার্ট ২

খাবার সকলেরই প্রিয়। সবাই খেতে ভালোবাসে। খাবার শুধুমাত্র আমাদের শরীর ভালো রাখে তাই না, খাবার আমাদের মনকেও আনন্দ দিয়ে থাকে। এর আগের পর্বে আপনাদেরকে কিছু প্রাচীন খাবারের কথা বলেছিলাম, আজ আমরা আরও কিছু প্রাচীন খাবার সম্পর্কে জানবো।

BREAD: আমাদের খাবার গুলোর মধ্যে রুটি বা ব্রেড অনেক গুরুত্বপূর্ণ খাবার। বর্তমানে প্রায় প্রত্যেক দেশেই এই খাবারটি পাওয়া যায়। বিভিন্ন দেশের প্রধান খাবারও রুটি। প্রাচীন কাল থেকেই মানুষ এই খবারটি খেয়ে আসছে। কিন্তু সবচেয়ে পুরনো রুটি কি আপনি দেখেছেন বা তার সম্পর্কে কিছু শুনেছেন।

গত বছর ডেনমার্কের একদল গবেষক জানিয়েছেন যে, প্রাচীন মানুষরা কৃষিকাজ শুরু করার অনেক আগে থেকেই রুটি বানাতে শুরু করে। উত্তর পশ্চিম জর্ডানে তার এর সন্ধান পেয়েছেন। গবেষকরা সেখানে একটি রুটি পেয়েছেন। গবেষকরা যে রুটিটি পেয়েছেন, সেই রুটিটি প্রায় ১৪ হাজার বছর পুরনো। গবেষকদের মতে, ঐ সময়কার শস্য গুলি প্রায় ৪ হাজার বছর পর এক যুগে কৃষিকাজের জন্ম দেয়। আমরা এখন বলছি বুনো হাঁস থেকে পাওয়া শস্যের কথা। এগুলি পরবর্তী কালে চাষ করা শুরু হয়।

২৪টি রুটির টুকরাকে পরীক্ষা করে জানা গেছে যে, ঐ শস্য গুলকে প্রথমে তুলে জর করা হত, এবং তারপর একসাথে মিশিয়ে রান্না করা হত।

যারা এই রুটি প্রথম তৈরি করেন তারা ছিলেন নটফিয়ান। তারা ছিল একদল শিকারি উপজাতি। এরা এপিথিলিয়া যুগের বর্বর উপজাতি। এই আবিস্কারের পূর্বে বিজ্ঞানীরা বিশ্বাস করতেন যে, ঐ যুগের মানুষরা শুধু ভেড়া আর বন্য পশুপাখির মাংস খেত।

WINE: আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন WINE একটি পানিয় খাবার। এবং এটি একটি দামি খাবার। আর WINE যত পুরনো হয়, সেটি খেতে ততটাই স্বাদযুক্ত হয়। ঠিক একই ভাবে এটির দামও বেড়ে যায়। মানে হচ্ছে যত পুরনো WINE ততই দাম বেশি, এবং মজাদার।

কিন্তু এই কথা পুরোপুরি ভাবে সত্য নয়। কথিত ও লিখিত আছে যে WINE মানুষের সাথে খুব ঘনিষ্ঠ ভাবে জড়িত। আরও ভালভাবে বললে বলা যায় যে এই পানীয়র সাথে আমাদের সম্পর্ক অনেক প্রাচীন।

বলা হয়ে থাকে যে ১০ হাজার থেকে ৮ হাজার খ্রিষ্ট পূর্বে অ্যালকোহল তৈরির প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল। WINE প্রস্তুতের প্রথম যুগের কোন নিদর্শন পাওয়া যায়নি। কিন্তু যেটা পাওয়া গেছে সেটা সত্যিই অনেক প্রাচীন।

সবচেয়ে পুরনো WINE এর বোতলের নাম Speyer Wine bottle. এই WINE এর বোতলটির বয়স প্রায় ১৬৫০ বছর। বর্তমান জার্মানিতে রোমান নোবেল ম্যান এর কবর খোরার সময় এই দেড় লিটারের কাঁচের বোতলটির দেখা মিলে।

NOODLES: নুডুলস আমাদের সকলেরই খুব প্রিয় একটি খাবার। ছোট বড় সকলেই এই খাবারটি খুব পছন্দ করে।
প্রাচীন কাল থেকেই নুডুলস কে আবিষ্কার করেছেন তা নিয়ে বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন মতভেদ রয়েছে। ইতালি, জাপান, ফ্রান্স, এবং আরব দেশের মানুষরা সকলেই দাবি করেন যে তারাই প্রথম নুডুলস আবিষ্কার করেছিলেন। ভয়ংকর তর্কবিতর্কের পর এর একটি সমাধান পাওয়া গেছে। ২০০৫ সালে একদল প্রত্নত্তবিদ একটি শক্তভাবে আটকানো বাটি পান। এই বাটিটিতে খুব যত্ন সহকারে নুডুলস সংরক্ষিত ছিল। আর এই বাটিটি পাওয়া যায় চীনের লেজিয়াতে। মাটি থেকে প্রায় তিন মিটার নীচে এই বাটি চাপা পরেছিল।

এই অঞ্চলে একবার ভয়ংকর ভূমিকম্প ও বন্যা দেখা দেয়। সম্ভবত সেই কারনেই নুডুলসটা কেউই খেতে পারে নি।

POPCRON: আমরা সাধারণত টিভি বা সিনামাহলে মুভি বা কিছু দেখার সময় POPCRON খেয়ে থাকি। কিন্তু প্রাচীন যুগে এইসব টিভি বা সিনামাহল ছিল না কিন্তু তারপরও প্রাচীন যুগের মানুষ POPCRON এর অনুরাগি ছিল।

কারন প্রাচীন পেরুভিয়ান্রা POPCRON খেত। প্রায় ১০ হাজার বছর আগে পেরুর এক অঞ্চলে বসবাসকারি মানুষের মধ্যে বাতাস ভর্তি স্নেক্স খাওয়ার প্রচলন ছিল। বিজ্ঞানীরা এই বিষয়ের সত্যতা খুজে পেয়েছেন। তারা যেই ভুট্টা আর ভুট্টার খসা পেয়েছেন তা প্রায় ৭ হাজার বছর আগের। ঐতিহাসিকদের মতে, তখনকার মানুষরা ঘটনা চক্রে জানতে পারেন যে তাও দিলে ভুট্টা ফুটে উঠে। তারপর থেকেই তারা POPCRON খাওয়া শুরু করে।

What do you think?

Written by MD BILLAL HOSSAIN

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading…

0

Comments

0 comments

অলৌকিক ক্ষমতা !!!

প্রথম মহাকাশচারী লায়কার দূঃখের গল্প