ফেসবুকে রেস্টুরেন্ট ব্যবসায় ব্ল্যাকমেইলিং

2674
SHARE

রেস্টুরেন্ট ব্যবসা শুরু করেছেন? চোখে অনেক স্বপ্ন? শহরের সেরা রেস্টুরেন্টের খাতায় নাম লিখাতে চান? চান শহরের সবাই জানুক আপনার রেস্টুরেন্টের কথা অথবা কাস্টমারে ভর্তি দেখতে চান নিজের অতি প্রিয় শখের রেস্টুরেন্ট? তাহলে নিশ্চয় স্যোশাল নেটওয়ার্কে একটু মার্কেটিং করার চিন্তা ভাবনা করছেন তাই না? ফেসবুক পেজ খুলার পরেও তেমন কোন রেস্পন্ড পাওয়া যাচ্ছে না। তাহলে কি করা উচিত? ও হ্যা, ইদানীং নানা ধরনের ফেসবুক গ্রুপ পাওয়া যায় যেখানে নানা রেস্টুরেন্টের গল্প বলা হয়। হাজার হাজার গ্রুপ মেম্বার থাকে। ২/১ জন এডমিন থাকে। এরা চাইলে তো আপনার রেস্টুরেন্টের হালকা মার্কেটিং করতে পারে! ওয়াও সো ইজি সল্যুশন! আরে, ওরা তো নিজে থেকেই আপনার রেস্টুরেন্টে এসে অফার করে গেল! আর পজিটিভ রিভি দেয়ার জন্য কিছু টাকা চাইল! আবার না দিলে নেগেটিভ মার্কেটিং করার হুমকিটাও দিয়ে গেল!

জি হ্যা, এখন ঠিক এভাবেই রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ীদের অনলাইনে ব্ল্যাকমেইল করা হচ্ছে আর এসব করছে ফুড রিলেটেড কিছু ফেসবুক গ্রুপ। আমাদের বাংলাদেশীজম প্রজেক্টের ইনবক্সে এসেছে এরকম বেশ অনেকগুলো ইমেইল যেখানে এসব কার্যকলাপের ব্যপারে তারা আমাদের সহায়তা চেয়েছেন যাতে করে মানুষকে এলার্ট করতে পারি। প্রথম দিকে খুন একটা পাত্তা দেই নি কারন এসব গ্রুপে বেশী হলে গড়ে ২০-৩০,০০০ মেম্বার থাকে। তাতে কি আর একটা কস্টে গড়া রেস্টুরেন্ট নস্ট হয়ে যাবে? তাই এ নিয়ে কোন পোস্ট বা সামাজিক সচেতনতা মূলক পোস্ট দেয়া হয় নি যা আমরা সচরাচর করে থাকি। কিন্তু ভুক্তভোগীর সংখ্যা দেখে আর কয়েকটা গ্রুপ এর কার্যকলাপ অবজার্ভ করার পর তো চক্ষু চড়ক গাছ! অন্তত ৩ জন ভুক্তভোগী আমাদের সাথে সরাসরি এসে অফিসে কথাও বলেছেন যেন এই বিষয়ে একটা রেস্পন্ড দেয়া হয়। আমাদের কাছে এসেছে অনেক স্ক্রিনশট আর মেসেজের কপি – ঠিক যেভাবে ব্ল্যাকমেইল করা হয় আর কি।

কারা করছে এসব?

সবচেয়ে বেশী কমপ্লেইন এসেছে “ফুড মনস্টার” নামের একটি ফেসবুক গ্রুপের নামে আর এদের ভিক্টিম চট্টগ্রামের বেশ কয়েকটি নামকরা রেস্টুরেন্ট। এমনকি বেশ নামকরা মানুষের রেস্টুরেন্টও এদের ভিক্টিম। বেশ কয়েকটা গ্রুপের কথা আসলেও কিন্তু সবাই সব গ্রুপের ব্যাপারে যথষ্ট তথ্য দিতে পারেন নি। কিন্তু এই “ফুড মনস্টার” গ্রুপের ব্যাপারে অনেক বিশদ বিবরন পাওয়া গেছে। এরা পুরাই প্রফেশনাল একটি ব্ল্যাকমেইলিং গ্রুপ। এরা গ্রুপে ডেফেইমিং এবং নেগেটিভ মার্কেটিং করার ভয় দেখিয়ে নানা রেস্টুরেন্ট মালিকের কাছ থেকে অবৈধ ডিসকাউন্ট এবং ক্যাশটাকা হাতিয়ে নেই। এসব গুপের এডমিনগুলো সাধারনত অপরাধীদের মত চলাফেরা করে অর্থাৎ এদের নাম-ঠিকানা খুজে পাওয়া মুশকিল। সব ভুয়া একাউন্ট দিয়ে ফেসবুক গ্রুপ খুলে আর এসব করে বেড়ায়। এদের বয়সও খুব বেশী না। সাধারনত ৩-৪ জন মিলে পুরো ব্ল্যাকমেইলিং কার্যক্রম পরিচালনা করে। “ফুড মনস্টার” গ্রুপের এডমিন সংখ্যা ৩-৪ জন তবে এদের হোতা সম্ভবত ইমরান নামের একটি ছেলে। এদের ভিক্টিম লিস্টের মধ্যে আছে এক সময়ের “গারলিক” রেস্টুরেন্ট, চট্টগ্রামের বিখ্যাত Shawarma House সহ আরো অনেক অনেক ভুক্তভোগী।

একটা রেস্টুরেন্ট চালু হবার পর, প্রথমে এরা আপনার সেই রেস্টুরেন্টে যাবে। কিছু খাবে, অর্ডার করবে। এরপর বলবে “ডিসকাউন্ট দিন”। আপনি যখন বলবেন যে কোন ডিসকাউন্ট নেই, তাহলে ওরা আপনাকে রেস্টুরেন্টের নেগেটিভ মার্কেটিং করার হুমকি দিবে। যেহেতু গ্রুপ গুলোতে অনেক মেম্বার থাকে সেহেতু আপনার বদনামি হবার বেশ ভাল একটা চান্স থাকে। কিছু আগে এই ফুড মনস্টার গ্রুপের লেটেস্ট ভিক্টিম হচ্ছে চট্টগ্রামের একটি নতুন কিন্তু বেশ পপুলার রেস্টুরেন্ট – Shawarma House। ডিস্কাউন্ট না দেয়া এবং ক্যাশ চাদা দিতে না চাওয়ার কারনে শুরু হয়ে যায় এই গ্রুপের ডিফেইমিং অপারেশন। চলতে থাকে নেগেটিভ মার্কেটিং। এ ব্যাপারে রেস্টুরেন্টের মালিক জনাব কাজী রাজিত ইশরাক বলেন “এদের কাজই হলো মানুষকে ব্ল্যাকমেইলিং করে টাকা নেয়া, ডিসকাউন্ট নেয়া। শুধু আমি না, আমার সাথে সাথে চট্টগ্রামের অনেক রেস্টুরেন্ট এদের কারনে সমস্যায় পড়ছে। চাদা না পাওয়ার কারনে এরা যেকোন রেস্টুরেন্টের নামে ইচ্ছামত নেগেটিভ মার্কেটিং করে”। উল্লেখ্য, Shawarma House চট্টগ্রামে নতুন এসেছে কিন্তু পবিত্র রোজার মাসে দুস্থদের বিনামূল্যে ইফতার বিলি করেছিলেন বলে চট্টগ্রামে তাঁদের খুব সম্মানের চোখে দেখা হয়। আর এই রেস্টুরেন্টের মালিক প্যানেলেও আছে চট্টগ্রামের সম্মানজনক কিছু ব্যাক্তি যাদের পুরো চট্টগ্রামই সম্মানের চোখে দেখেন।

নীচে এই ফুডমন্সটার গ্রুপের এডমিনের কিছু ফেসবুক মেসেজের স্ক্রিনশট তুলে ধরা হলো। এগুলো আমাদের পাঠিয়েছেন ভিক্টিমরা। এগুলো ক্রিমিনাল এবং ভুক্তভোগীদের মধ্যে কিছু কথোপকোথন।

Food 1

এধরনের আরো হাজারো স্ক্রিনশট পাঠানো হয়েছে কিন্তু সব কিছু এখানে দেয়া সম্ভব না। ৬ জন রেস্টুরেন্ট মালিকের আমরা আমাদের স্টুডিওতে ইন্টারভিউ নিয়েছি এবং শীঘ্রই এগুলো আমরা প্রকাশ করব। অন্যান্য গ্রুপের ব্যাপারে খুব স্পেসিফিক তথ্য না পেয়ে এগুলো আমরা শেয়ার করছি না আপাতত তবে এই ফুডমন্সটারের ব্যাপারে অভিযোগ অনেকের!  এই গ্রুপের ইমরান নামক এডমিনের খোজ নিয়ে দেখে গেছে এর আগে এধরনের কর্মকান্ড করতে গিয়ে জনতার হাতে ধরা খেয়েছে ৩ বার এবং সম্ভবত পাবলিকের মারও খেয়েছিল। এরপর থেকে সে নিজেকে লুকিয়ে রাখার চেষ্টা করে। যে কারনে তার আইডি ঘেটে তার কোন ছবি বা তথ্য পাওয়া যায় না। তবে এই গ্রুপের আরেকজন এডমিনের কাজিনের সাথে আমাদের কথা হয়েছে। তিনি ২ জন ভুক্তভোগীকে সাহায্য করছেন যাতে করে তারা আইনী সহায়তা পেতে পারেন। আর Shawarma House এর পক্ষ থেকে কিছু আইনি স্টেপ নেয়া হয়েছে। এটাকে সাইবার ক্রাইম হিসেবেই দেখা হচ্ছে। উল্লেখ্য এই ফুডমুনস্টার গ্রুপের এডমিন “ইমরান” বেশীরভাগ সময় নানা রেস্টুরেন্টে গিয়ে কখনও নিজেকে “মন্ত্রীর ভাতিজা”, ছাত্রলীগের সদস্য, অমুক নেতার ছোট ভাই – ইত্যাদি বলে অন্যদের নাম বিক্রি করার চেষ্টা করলেও বাস্তবে তাঁদের সাথে এই মূল কালপ্রিটের কোন যোগাযোগ নেই।

এই ব্যাপারে আমরা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন করছি। আমরা জানি আমাদের এই পেজে প্রশাসনের অনেক বড় হর্তা কর্তারা নিয়মিত ফলো করেন এবং সময়ে সময়ে নানাভাবে  বিভিন্ন ইস্যুতে আমাদের হেল্পও করেন গার্ডিয়ান এঞ্জেলের মত। তাই এবারও আপনাদের দৃষ্টি আকর্ষন করছি। এধরনের নতুন সন্ত্রাসী গ্রুপ তৈরী হবার আগেই এদের গোড়াসহ উপড়ে ফেলতে হবে তানা হলে একদিন এরা ব্ল্যাকমেইলার থেকে বড় সন্ত্রাসী হতে বেশি সময় নিবে না। এরা যে শুধু রেস্টুরেন্টগুলোকে ভিক্টিম করছে তা না, ভূল তথ্য দিয়ে সাধারন মানুষকেও ভূল পথে পরিচালিত করছে আর সেই সাথে সরকারের নাম ভাঙিয়ে বাস্তবে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছে এসব ছোট খাটো ব্যাপার দিয়ে।

আর রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ীদের বলছি, দয়া করে এসব ফুড গ্রুপে জয়েন করবেন না। করে কোন লাভ নেই। নিজের মার্কেটিং নিজে করার চেষ্টা করেন। শুধু শুধু ক্রিমিনালদের হাতে নিজের কস্টের ব্যবসার মান সম্মান হাতে তুলে দেয়ার কোন মানে হয় না। একটা ফেসবুক গ্রুপ খুলতে কোন টাকা লাগে না কিন্তু একটা রেস্টুরেন্ট খুলতে লক্ষ কোটি টাকা লাগে আর একবার লস-এ পড়লে সে টাকা ফেরত পাওয়া যায় না। অনেকেই তো নিজের শেষ সম্বল নিয়ে ব্যবসা করতে নেমেছেন। কেন আপনারা এসব ক্রিমিনালদের হাতে নিজের ব্যবসার মানসম্মান ছেড়ে দেন শুধু মাত্র ২/৩ জন ক্রেতা বাড়ার আশায় বা সস্তায় মার্কেটিং করার আশায়?

আশা করি, এসব ক্রিমিনাল গ্রুপের ব্যাপারে শীঘ্রই আমরা কোন একশন দেখতে পাব। সুস্থ ব্যবসার পরিবেশ বজায় থাকুক। ভাল থাকুন।

 

 

আপনার মন্তব্য