বাংলাদেশের বেকারত্ব ও নৈতিক অবক্ষয়!!!

5483
SHARE

বর্তমানে বাংলাদেশে যে সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করেছে তা হল বেকারত্ব। স্বল্পোন্নত দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশেই বেকার সমস্যা সবচেয়ে বেশী। বাংলাদেশে নিম্ন মধ্যবিত্ত আয়ের মানুষ সবচেয়ে বেশী। পড়াশোনা শেষ করার পর চাকুরীর সন্ধানে নেমে পরে। কিন্তু চাহিদা অনুসারে কর্মক্ষেত্র কম থাকায় বেকারের সংখ্যা বাড়ছে দিন দিন।

বাংলাদেশে বর্তমানে বেকারের সংখ্যা মোট জনসংখ্যার ২% শতাংশ। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো এর রিপোর্ট অনুসারে ২০১০ সালে বেকারের সংখ্যা ছিল ২৬ লাখ। ২০০০ সালে যা ছিল ১৭ লাখ। ২০০০ সাল থেকে ২০১০ পর্যন্ত বেকারত্বের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে ৫ দশমিক ২৯ শতাংশ। আর এই সংখ্যা ২০১৬ সালে বেড়ে দাড়িয়েছে ৮ দশমিক ০৫ শতাংশে।

2.1

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) সর্বশেষ যে তথ্য প্রকাশ করেছে, সে তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশে বর্তমানে বেকারত্ব বাড়ার হার ৩ দশমিক ৭ শতাংশ। পরিসংখ্যান অনুযায়ী প্রতিবছর বাংলাদেশে কর্মবাজারে প্রবেশ করছে প্রায় ২৭ লাখ।

বাংলাদেশে বর্তমানে বার্ষিক মাথাপিছু আয় ১১০০ মার্কিন ডলার। বেকারত্বের কারণে এদেশের দারিদ্রের অভিশাপ দিন দিন প্রকট আকার ধারণ করছে। মৌলিক চাহিদা ( অন্য, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা ও চিকিৎসা) এখন পূর্নতা পায়নি। বেকারত্বের কারণে শহর ও গ্রামে বৃদ্ধি পাছে অপরাধ প্রবণতা। মানুষ যখন স্বাভাবিক ভাবে উপার্জন করতে পারেনা তখন তারা অপরাধের পথ বেছে নেয়। ফলে দেশে শুরু হয় জঙ্গি হামলা, চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই , হত্যা, ধর্ষন ইত্যাদির মত অপরাধ যা ক্রমশই বৃদ্ধি পাচ্ছে। মানুষের জীবন সূচী বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় যে, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সময় হল যৌবনকাল(১৬-৪০)। বাংলাদেশে বর্তমানে মোট জনসংখ্যা প্রায় এক তৃতীয়াংশ যুবক। যৌবনের এই সময় মানুষ অধিক অপরাধ প্রবণতা থাকে এবং অন্যতম কারণ বেকারত্ব। পবিত্র হাদিসে আছে “ খালি মস্তিস্ক শয়তানের  কারখানা”। ঠিক খালি মস্তিস্ক বলতে আমরা এখানে বেকারদের বুঝিয়েছি। আর অধিকাংশ বেকার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ে। যুক্তরাষ্ট্রের ১৩ হাজার লোকের উপর গবেষণা চালিয়ে দেখা গেছে বেকার ও কর্মহীন মানুষ অতিরিক্ত মানসিক চাপ ও রক্ত চাপে ভগে।

3

আর এই সমস্যা থেকে উত্তরণের উপায় হলো আত্মকর্মসংস্থান। নিজে নিজের ও অন্যের কর্মসস্থান সুযোগ সৃষ্টি করে বেকারত্ব দুরী করণে সহায়ক ভুমিকা রাখতে পারে । বেকারত্ব প্রসঙ্গে নোবেল বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনুস তাঁর এক উক্তিতে বলেন “ এই দেশের তরুণরা চাকরি প্রার্থী নন তারা চাকরি দাতা।“ এই যুব সমাজই দেশের ভবিষ্যৎ কাণ্ডারি, তাদের কর্ম দক্ষতায় গড়ে উঠবে সোনার বাংলাদেশ।

আপনার মন্তব্য