শব্দদূষণের কবলে দেশ

24
SHARE

সোহেল হাবিব 

রাজধানী ঢাকাসহ সমগ্র দেশ ভয়াবহ শব্দদূষণের কবলে নিপতিত শহরই হোক, আর গ্রামাঞ্চলই হোক, শব্দ দূষণ এখন অলিতেগলিতে ছড়িয়ে পড়েছে শব্দ দূষণের মাত্রা অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ব্যাপারে নীরব ভূমিকা পালন করছেন

শব্দ দূষণের ফলে মানবদেহে নানা রোগ ব্যাধির জন্ম হচ্ছে যেমনমানুষের হার্ট, কিডনি এবং মস্তিস্কের ওপর দারুণ ক্ষতিকর প্রভাব সৃষ্টি করছে উচ্চ মাত্রার শব্দ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শব্দ দূষণের ফলে কানে কমশোনা, গ্যাস্ট্রিক ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ তাছাড়া হঠাৎ উচ্চ শব্দ কানের পর্দায় আঘাত করলে তার প্রভাবে হৃদস্পন্দন দ্রুত হয়, রক্তনালী সংকুচিত হয়ে আস্তে আস্তে চোখের মণি প্রসারিত হয় পাকস্থলী, খাদ্যনালী শরীরে খিচুনীর দেখা দিতে পারে মানসিক অস্থিরতা স্নায়ুবিক উত্তেজনা বাড়ে ফলে শারিরীক দুর্বলতা, বিরক্তি, ক্রোধ, উদ্বিগ্নতা, হতাশা, টেনশন, উত্তেজনা, অবসাদসহ নানারকম মানসিক রোগের জন্ম হচ্চে মানবদেহে সেই সঙ্গে রয়েছে বদহজম, পেপটিক আলসার, মেরুবেঁকে যাওয়া, হাড় ফেটে যাওয়া এবং শ্বাসকষ্ট বৃদ্ধির আশংকা

তাছাড়া, শব্দ যে কোনো সময় মস্তিস্কে আঘাত করতে পারে লাখ লাখ মানুষ বধিরতা থেকে শুরু করে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হওয়াসহ বেশ কিছু মারাত্মক রোগের শিকার হচ্ছে গর্ভবতী মা শিশুর জন্য অতিরিক্ত শব্দ অত্যন্ত ক্ষতিকর অনেক সময় শিশুদের শ্রবণশক্তি হারানোসহ গর্ভবতী মায়েরা পঙ্গু শিশু জন্ম দিচ্ছে এই শব্দ দূষণের জন্য মানুষের জীবনযাত্রা যতোইযন্ত্রচালিতহচ্ছে ততোই যুক্ত হচ্ছে শব্দ দূষণ কারণ যানবাহন চলাচলে অব্যবস্থাপনা, যত্রতত্র মাইকিং, হাইড্রোলিক হর্ণ ব্যবহার, নির্মাণ কাজে ব্যবহৃত মিক্সার মেশিন জেনারেটরের ব্যবহার ইত্যাদি কারণে শব্দ দূষণের মাত্রা বেড়ে চলেছে

শব্দ দূষণ নিয়ন্ত্রণে আইন রয়েছে আইনে শাস্তির বিধানও আছে কিন্তু এই আইনের প্রয়োগ নেই আইনে যানবাহনে হাইড্রোলিক হর্ণ বাজানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে তারপরও অহরহ ব্যবহৃত হচ্ছে হাইড্রোলিক হর্ণ অথচ অতিরিক্ত শব্দ যে দূষণ হিসেবে গণ্য হয় এবং এটা যে শাস্তিযোগ্য অপরাধ, তাও জানে না অনেকে

শব্দ দূষণ নিয়ন্ত্রণে প্রথমেই দরকার আমাদের নিজেদের সচেতনতা, মানুষের সচেতনতা যারা শব্দ দূষণ সৃষ্টি করছে তাদেরকে ব্যাপারটি উপলদ্ধি করতে হবে, করাতে হবে তাদের বোঝাতে হবে এই শব্দ দূষণে পরিবেশে শান্তি নষ্ট হচ্ছে মানুষ নানা জটিল রোগে আক্রান্ত হচ্ছে

এই সংক্রান্ত আইনেরও যথাযথ প্রয়োগ জরুরি আইনে রয়েছে মসজিদ, হাসপাতাল, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আশেপাশে যানবাহনের হর্ণ বাজানো যাবে না আবাসিক এলাকায় ইট পাথর ভাঙ্গার মেশিন ব্যবহার আবাসিক ভবন থেকে পাঁচশ মিটার দূরত্ব পর্যন্ত নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে কিন্তু  এই আইনের প্রয়োগ নেই

অতএব, অবিলম্বে সারাদেশে শব্দ দূষণ রোধে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে এবং দ্রুত কিছু না করলে সামনে সমূহ বিপদ        

আপনার মন্তব্য