বড় ভাই জেলে যেতে চান, তবে শর্ত আছে…!!!

33
SHARE

এক (ফেসবুকীয়) বড় ভাই আছেন যিনি রম্য লেখক হিসেবে সুপরিচিত। সাংবাদিক কিংবা টিভি কর্মকর্তা হিসেবেও পরিচিতি ও অবস্থান বেশ উপরের দিকে। উনার ইচ্ছা হইছে দুই রাত জেলে থাকবার, কিন্তু লগে শর্ত দিছেন। তাছাড়া, শুধু যে তিনি নিজেই জেলে যেতে চান, তা না; মনে হয় অন্যদেরও সাথে নিয়ে ঢুকবার ষড়যন্ত্রও করছেন। আর সে কারণেই নিজের টাইমলাইনে ইচ্ছার কথা জানিয়ে শেষ লাইনে লিখেছেন, ‘আগ্রহিরা ইনবক্স করেন!’

ফেসবুকে তিনি লিখেছেন,

“পুরাতন কারাগারে টাকার বিনিময়ে থাকার একটা বন্দোবস্ত হইতেছে।ফিল ফর প্রিজনপ্রকল্পের আওতায় আসামীদের জীবন অনুধাবনের জন্য এই প্রচেষ্টা।
আইডিয়াটা পছন্দ হইছে।
যদি মাইরমুইর না দেয় তাইলে আমিও দুইরাত থাকব ইনশাল্লাহ।
আগ্রহিরা ইনবক্স করেন।”

ভাইয়ের স্ট্যাটাস পইড়া মনে হইতাছে, উনি জেলে থাকতে চান ঠিকই কিন্তু মাইর-মুইর খাইতে আগ্রহী না! সে না হয় মানলাম কিন্তু তারপরও একটা প্রশ্ন- ভাই, মাইর-মুইর যদি না-ই দেয় তাইলে ‘ফিল ফর প্রিজন’ হইব কেমনে?

আসল ঘটনা হচ্ছে, কয়েদিদের অনুভূতি কেমন তা জানতে পৃথিবীর অনেক দেশেই ‘ফিল দ্য জেল’ নামে প্রকল্প চালু রয়েছে। অ্যাডভেঞ্চারপ্রিয় সাধারণ মানুষ টাকার বিনিময়ে এতে কয়েদিদের অনুভূতি নিতে পারেন। নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা পরিশোধ করলে কারাগারের ভেতরে নির্দিষ্ট সময়ের জন্য এ অনুভূতি নেওয়া সুযোগ পায় সাধারণ মানুষ। ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের ভেতরে এমনই একটা প্রকল্প চালুর পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ।

আর সে পরিকল্পনার কথা জেনেই বড় ভাইয়ের ইচ্ছা জাগছে। যাইহোক, এমন ইচ্ছা অনেকেরই মনেই যে জাগবে, তাতে কোনো সন্দেহ নেই; কি আর বলব- নিজেরও যে সেই ইচ্ছা করছে না, তাই-বা কী করে বলি?

শুক্রবার (২৮ অক্টোবর) পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের ভেতরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন ‘ফিল দ্য জেল’ পরিকল্পনার কথা উল্লেখ করে বলেন, কারাগারের সমস্ত নিয়ম-কানুন মেনে যে কেউ অর্থের বিনিময়ে এক বা দু’দিনের জন্য কারাগার পরিদর্শন করতে পারবে। পরিদর্শনকালে কেউ যদি কারাগারে থাকতে চায়, তাহলে কয়েদিদের জন্য সরবরাহ করা খাবার খেয়ে থাকার সুযোগ পাবে। কারাগারে থাকতে কেমন লাগে সেই অনুভূতিটা তারা বুঝতে পারেন।

অন্যান্য দেশে আগে থেকেই এমন ব্যবস্থা থাকলেও আমাদের জন্য একেবারেই নতুন এবং ব্যতিক্রম ঘটনা। তাই একবার চালু হলে, এটা যে ব্যাপক সাড়া ফেলবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। নাগরিক জীবনের একঘেঁয়েমি দূর করতে এতদিন যারা শহর ছেড়ে গ্রাম-গঞ্জ, পাহাড় কিংবা সমুদ্র দেখতে বেরিয়ে পড়তেন। এখন হয়তো তাদের আরও একটি নতুন ঠিকানা হলো, ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পুরানো কারাগার।

দেখা যাক, এটা আমাদের জন্য আর কি কি পরিবর্তনের বার্তা নিয়ে আসে।

রিলেভেন্ট এই বিষয়গুলোর উপর ভিডিও দেখতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি – ঠিকানা – YouTube.com/Bangladeshism

আপনার মন্তব্য