একজন নারীর দখলেই যাচ্ছে হোয়াইট হাউজ

34
SHARE

হাসান শাহরিয়ার

২৪০ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম একজন নারীর দখলে যাচ্ছে হোয়াইট হাউজ। নির্বাচন এখনো শেষ হয়নি, ভোট গণনা তো আরও পরের কথা। তারপর না হয় সিদ্ধান্ত হবে যে কে যাচ্ছে হোয়াইট হাউজে। অথচ, তার আগেই বলে ফেলছি, একজন নারীর দখলে যাচ্ছে হোয়াইট হাউজ!

আসলে এবারের যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন নিয়ে প্রকাশিত জনমত জরিপ, গণমাধ্যগুলোর সমর্থন, সাবেক এবং বর্তমান প্রেসিডেন্টদের সমর্থন, সে দেশের কর্পোরেট হাউজগুলোর সমর্থন, গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই’র কিছু মানুষের মধ্যে নাক সিটকানো ভাব থাকলেও তাদের সর্বশেষ সমর্থন হিলারির পক্ষেই গেছে। তাছাড়া আগাম ভোটের হিসাবও হিলারির পক্ষে। এই যখন বাস্তবতা তখন এটা বলতে দোষ কি যে হিলারির দখলেই যাচ্ছে হোয়াইট হাউজ।

সুতরাং আগাম ধন্যবাদ রইল যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নিতে যাওয়া হিলারির জন্য।

যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতার ইতিহাসের ২৪০ বছরে এবারই প্রথম একজন নারীকে মূলধারার দল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দিয়েছে। আর মনোনয়ন পেয়ে হিলারি সেটা কাজে লাগিয়ে বাজিমাৎ করেই দিয়েছেন বলতে গেলে। ধারাবাহিকভাবে তৃতীয় মেয়াদে ডেমোক্র্যাটদের ক্ষমতায় আনার পাশাপাশি ইতিহাস গড়েছেন নিজেও।

তবে ইতিহাস গড়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেও হিলারির চলার পথ ততটা মসৃণ হবে বলে মনে হয় না। কারণ, হিলারির সততা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে। বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্যে আইএস প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে হিলারির ভূমিকা খুবই সন্দেহজনক। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্বে থাকার সময় তিনিই নাকি আইএস সৃষ্টির পেছনে কলকাঠি নেড়েছেন। এমনকি আইএস’র জন্য চাঁদাও কালেকশান করেছেন। অথচ, উপরে উপরে আইএস ধ্বংসের নামে গোটা মধ্যপ্রাচ্যকে ধ্বংসস্তূপে পরিণত করছে আমেরিকা।

তাছাড়া, নিজের ক্ষমতাকে ব্যবহার করে তার স্বামী সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন প্রতিষ্ঠিত ফাউন্ডেশনের জন্যও অনুদান সংগ্রহ করেছেন তিনি। যা অনৈতিক কর্মকাণ্ড।

আমেরিকার প্রবল প্রতিপক্ষ রাশিয়ারও চক্ষুশূল হিলারি। বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্য ইস্যুতে রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের তীব্র মনোভাব উপেক্ষা করে হিলারি কতটা সমীহ আদায় করতে পারবেন তারও নিশ্চয়তা নেই।

তাই হিলারির জন্য সামনে কী অপেক্ষা করছে তা সময়ই বলে দেবে।

রিলেভেন্ট এই বিষয়গুলোর উপর ভিডিও দেখতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি – ঠিকানা – YouTube.com/Bangladeshism

আপনার মন্তব্য