শীতের আগমনী সংবাদ মিলছে পাটালি গুড়ে

60
SHARE

হাসান শাহরিয়ার
শীত এলেই গ্রাম-বাংলায় পিঠা-পুলির উৎসব শুরু হয়ে যায়। আর পিঠার অন্যতম উপাদান হচ্ছে খেজুরের রস এবং পাটালি গুড়। যা শুধু শীতকালেই খেজুর গাছ থেকে সংগ্রহ করা যায়।

তাই খেজুর গাছ বিশেষ পদ্ধতিতে কেটে গাছিদের কলসি ঝুলাতে দেখলেই শিশু-কিশোরদের মধ্যে চাঞ্চল্য শুরু হয়ে যায়। সকাল বেলা কাঁচা রস যেমন খাওয়ার ধুম পড়ে, তেমনি জ্বাল দেওয়া গাঢ় রসের তৈরি নানা জাতের পিঠা খাওয়ার লোভ তো আছেই।

Latest Video Release

বাংলাদেশের টাইগারদের উৎসর্গ করে বাংলাদেশীজম প্রজেক্ট তৈরী করেছে একটি বিশেষ ভিডিও। নীচে ভিডিওটি দিয়ে দিলাম। দেখে ফেলুন।

আমাদের দেশের শহরগুলোতে বিশেষ করে রাজধানী ঢাকায় শীত অনুভূত হয় একটু দেড়িতে। কিন্তু গ্রামে-গঞ্জে শীতের আমেজ পাওয়া যায় অনেক আগেই। এই যেমন ঢাকায় এখনও শীত অনুভূত হচ্ছে না। কিন্তু পত্রপত্রিকায় ছাপা হচ্ছে, দেশের বিভিন্ন প্রান্তের গাছিদের খেজুর গাছ কেটে কলসি ঝুলানোর ছবি। তার মানে শীত এসে গেছে।

বিশেষ করে রাজশাহী অঞ্চলে পুরোদমে শুরু হয়েছে খেজুরের রস সংগ্রহের আয়োজন। পত্রিকার এক সংবাদ থেকে জানা গেছে, রাজশাহীর বাঘা উপজেলার গ্রামে গ্রামে গাছিরা মৌসুম চুক্তিতে খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহ করতে শুরু করেছেন। প্রতিদিন সকালে খেজুরের রস জালিয়ে পাটালি গুড় বানানোরও ধুম পড়েছে।

শীতের দিনে খেজুরের রস আর পাটালি গুড় বাঙালির রসনায় এক অতি লোভনীয় বস্তু। শিশু-কিশোররা যেমন এর জন্য পাগল প্রায়, তেমনি আমরা বড়রাও কিন্তু কম লালায়াতি থাকি না।

তাই তো নগরবাসীদেরও দেখা যায়, যাদের সুযোগ আছে নিজেরাই গ্রাম থেকে সংগ্রহ করে নিয়ে আসেন খেজুরের রস কিংবা পাটালি। কেউ কেউ আবার এর স্বাদ নিতে ছুটি নিয়েই চলে যান গ্রামের বাড়িতে।

কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, বাঙালির ঐতিহ্য এই খেজুরের রস এবং পাটালির উৎপাদন দিন দিন কমে আসছে। আর্থিক দিক থেকে লাভজনক না হওয়ায় অনেকেই তাদের বাগানের খেজুর গাছ কেটে অন্য জাতের গাছ লাগাচ্ছেন। কোনো কোনো স্থানে আবার খেজুর গাছ কেটে ফসলের জমি বানানো হচ্ছে।

ফলে কমে যাচ্ছে খেজুর গাছের সংখ্যা। কিন্তু এভাবে বাঙালির রসনা থেকে খেজুরের রস এবং পাটালি হারিয়ে যাক তা আমরা প্রত্যাশা করি না। তাই কৃষি বিভাগসহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি অনুরোধ থাকবে, এটিকে কীভাবে আর্থিকভাবে লাভজনক করে চাষ করা যায় সেদিকে দৃষ্টি দিতে।

 

আপনার মন্তব্য